আজ : বৃহস্পতিবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৭ ইং | ২রা ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

খাদ্য সংকটে ৬২ লাখ মানুষ, নিহত ২৬

সময় : ২:২৩ পূর্বাহ্ণ , তারিখ : ২২ মার্চ, ২০১৭


আন্তর্জাতিক ডেস্ক:সোমালিয়ার দক্ষিণাঞ্চলীয় আধা স্বায়ত্ত্বশাসিত এলাকা জুব্বাল্যান্ডে দুর্ভিক্ষের কারণে দুইদিনে ২৬ জন মারা গেছে।সোমালিয়ার সরকারি রেডিওর ওয়েবসাইটের বরাতে মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

সোমালিয়া ওই অঞ্চলের অন্য দেশগুলোর মতোই প্রচণ্ড খরাপীড়িত। এতে দেশটির গবাদিপশুর মৃত্যু ও ফসলহানি ঘটছে। এই খরা দেশটির ৬২ লাখ মানুষকে খাদ্য সংকটে ফেলেছে, এই সংখ্যা মোট জনগণের প্রায় অর্ধেক।তীব্র দুর্ভিক্ষের কারণে শত শত পরিবার সাহায্যের জন্য জুব্বাল্যান্ড ছেড়ে রাজধানী মোগাদিসুতে ভিড় জমিয়েছেন।

রেডিওর ওয়েবসাইটে জুব্বাল্যান্ডের সহকারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মুহাম্মদ হুসাইনকে উদ্ধৃত্ত করে বলা হয়েছে, প্রচণ্ড খরার কারণে সোমবার পর্যন্ত ৩৬ ঘণ্টায় মধ্য জুব্বাল্যান্ড এবং গেডো এলাকার বিভিন্ন শহরে ওই ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।তিনি বলেন, নিহতরা ওই সব এলাকার মানুষ যাদের জরুরি সহায়তা প্রয়োজন।

বাসিন্দারা জানিয়েছেন, দুর্ভিক্ষ কবলিত প্রায় সব শহরই বিদ্রোহী আল শাবাব নিয়ন্ত্রিত। তাদের সঙ্গে পশ্চিমা মদদপুষ্ট মোগাদিসুর কেন্দ্রীয় সরকারের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ চলছে।

মঙ্গলবার জুব্বাল্যান্ড থেকে পরিবারের অন্য নয় সদস্যদের সঙ্গে গাধা এবং গাড়িতে চড়ে মোগাদিসুতে পৌঁছেছেন ৬২ বছরের ইব্রাহিম আবদু।

মোগাদিসুর একটি গাছের নিচে তাবু খাটানোর সময় তিনি রয়টার্সকে বলেন, আমাদের গরু এবং ফসল শুকিয়ে গেছে। সেখানকার নদীগুলো শুকিয়ে গেছে এবং মাটি খুড়েও কোথাও পানি পাওয়া যায় না।

মোগাদিসুর বাসিন্দারা দুর্ভিক্ষ পীড়িত পরিবারগুলোকে খাবার এবং বালতিতে করে পানি দিচ্ছে। তবে তারা বলছেন, সাহায্য সংস্থাগুলো থেকে জরুরি ভিত্তিতে খাদ্য সহায়তা প্রয়োজন।

চলতি মাসে জাতিসংঘ মহাসচিব সোমালিয়ার দুর্ভিক্ষ মোকাবিলায় ধনী দেশগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।

সাহায্য ছাড়া সন্ত্রাসবাদ জোরদার হবে বলে সতর্কতা জানিয়ে ৮২ কোটি ৫০ লাখ ডলারের সহায়তা দেয়ার জন্য জাতিসংঘ মহাসচিব আহ্বান জানিয়েছেন।

Top