আজ : বুধবার, ২৩শে আগস্ট, ২০১৭ ইং | ৮ই ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

ছিনতাইয়ের চেস্টা ॥ আটক-১- জরুরী বিভাগে তালা

সময় : ১১:৪৫ পূর্বাহ্ণ , তারিখ : ১১ মার্চ, ২০১৭


বরিশালের শিক্ষানবিশ চিকিৎসকের গলায় ছুড়ি ধরে ছিনতাইয়ের চেষ্টাকালে এক ছিনতাইকারীকে আটক করা হয়েছে। শুক্রবার রাত ১২টার দিকে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তার দাবিতে শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা। পাশাপাশি ছিনতাইকারীকে মারধরে পুলিশ বাধা দেয়ার প্রতিবাদে জরুরি বিভাগের গেটে তালা ঝুলিয়ে রোগী ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ এবং কর্মবিরতি পালন করে তারা। দীর্ঘ চেষ্টার পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার পাশাপাশি রাজিব খান নামে ছিনতাইকারীকে আটক করেছে পুলিশ।
এদিকে আটক ছিনতাইকারী রাজীব খানের কাছ থেকে সাংবাদিক পরিচয়ধারী একটি ভুয়া আইডি কার্ড উদ্ধার করেছে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা। ক্রাইম পেট্রোল নিউজ নামে ওই অনলাইন পত্রিকায় কর্মরত বলে আটক রাজীব জানালেও তার কোন প্রমাণ দিতে পারেনি বলে জানান বেশ কয়েকজন ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।
শেবাচিম হাসপাতালে দায়িত্বে থাকা বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পরিদর্শক আব্দুল লতিফ শিক্ষানবিশ চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে বলেন, সেতু নামে এক শিক্ষানবিশ চিকিৎসক হাসপাতালের দায়িত্ব পালন শেষে হেঁটে ইন্টার্নি ডক্টর্স হোস্টেলে ফিরছিলেন। পথে রাত ১২টার দিকে দুই ছিনতাইকারী হাসপাতাল কম্পাউন্ডের পরমাণু চিকিৎসাকেন্দ্রের পাশে নির্জন স্থানে তার পথরোধ করে। কিছু বুঝে উঠার আগেই ছিনতাইকারীদের হাতে থাকা ছুড়ি শিক্ষানবিশ চিকিৎসক সেতুর গলায় ধরে টাকা, মোবাইলসহ প্রয়োজনীয় মালামাল ছিনতাই চেষ্টা করে। এসময় একটি মোটরসাইকেল এসে পড়ায় পালাবার চেষ্টা করে ছিনতাইকারীরা। এর মধ্যে একজন দৌড়ে পালাতে সক্ষম হলেও মোটরসাইকেল নিয়ে ধাওয়া করে রাজিব নামে ছিনতাইকারীকে আটক করতে সক্ষম হন শিক্ষনবিশ চিকিৎসকরা। পরে তাকে গণধোলাই দিয়ে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে গনধোলাইর শিকার ছিনতাইকারী রাজীবকে উদ্ধার করে তাদের হেফাজতে নিয়ে যায়।
এক পর্যায় নিরাপত্তার দাবিতে হাসপাতালের সকল ইন্টার্নরা কর্মবিরতি রেখে জরুরি বিভাগের সামনে এসে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকেন। একই সাথে তারা জরুরি বিভাগে প্রবেশ গেটে তালা লাগিয়ে রোগী ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়।
এ বিষয়ে জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা. কল্লান মিত্র বলেন, পুলিশ এবং তাদের হস্তক্ষেপে রাত পৌনে ১টার দিকে জরুরি বিভাগের গেট খুলে দেয়ার পাশাপাশি রোগীর ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
তবে ঘটনার পরে বিক্ষুদ্ধ ইন্টার্ন চিকিৎসকরা হাসপাতাল চত্বরে পুলিশি টহল ব্যবস্থা বৃদ্ধির পাশাপাশি চিকিৎসক, শিক্ষক, শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্টদের নিরাপত্তার দাবি জানিয়ে ক্যাম্পাসের মধ্যে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বলেও জানিয়েছেন ওই চিকিৎসক।

Top