আজ : রবিবার, ২৩শে জুলাই, ২০১৭ ইং | ৮ই শ্রাবণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

জুলাইতেই দৃশ্যমান হচ্ছে পদ্মা সেতু

সময় : ১১:১০ পূর্বাহ্ণ , তারিখ : ১১ মার্চ, ২০১৭


চলতি বছর জুলাইতে দৃশ্যমান হচ্ছে পদ্মা সেতু। সে লক্ষ্যে ক্রাশ প্রোগ্রাম গ্রহণ করা হয়েছে। ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিলার পরিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করার চূড়ান্ত ঘোষণা দেয়া হয়েছে ২৪ জুলাই। এরপরই এই দুই পিলারের উপর প্রথম স্প্যানটি বসিয়ে দেয়া হবে। ইতিমধ্যেই লোড টেস্ট করে স্থাপনের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে প্রথম স্প্যানটি (১৫০ মিটার দীর্ঘ সুপার স্ট্রাকচার)। এটি স্থাপনের পরই সেতুর মূল চেহারার অংশ ভেসে উঠবে।

এরপর ধীরে ধীরে আরো ৪০টি স্প্যান বসবে। এর আগে প্রথম স্প্যানটি স্থাপনের ঘোষণা ছিল গত জানুয়ারিতে। কিন্তু নানা চ্যালেঞ্জের কারণে তা সম্ভব হয়নি।

পদ্মায় সেতুর বেইজ গ্রাউন্ড সমস্যা সমাধানের পরই কর্মযজ্ঞে নতুন সম্ভাবনা উঁকি দিয়েছে। পদ্মা সেতুর দায়িত্বশীল এক প্রকৌশলী তথ্যটি নিশ্চিত করে জানান, প্রবল স্রোতের বৈচিত্র্যময় পদ্মার তলদেশের মাটিতেও নানা বৈচিত্র্যতা। এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেই বিশ্বের প্রথম এই ব্যতিক্রম এবং বেশি গভীরে পিলার স্থাপন করে তৈরি হচ্ছে পদ্মা সেতু। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রজ্ঞাপূর্ণ সিদ্ধান্তে নিজস্ব অর্থায়নে সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের আরেক ধাপ অতিক্রম করছে।

এদিকে পদ্মা সেতুর বেইজ গ্রাউন্ড সমস্যার সমাধান দিয়ে বিদেশী ১২ বিশেষজ্ঞ ফিরে গেছেন। পদ্মায় সেতুর পাইলের বেইজ গ্রাউন্ড কংক্রিটিংয়ে চ্যালেঞ্জ দেখা দেয়। তাই বিদেশী ১২ সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ তলব করে চীনা ঠিকদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানি। এখন এই সমস্যা সমাধানের পর পুরোদমে পাইলের কাজ চলছে। ৩৭ নম্বর পিলারের দু’টি পাইলে কংক্রিটিং চলছে।

পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) দেওয়ান আব্দুল কাদের জানান, ৩৭ নম্বর পিলার ও ৩৮ নম্বর পিলারের উপরই বসবে প্রথম স্প্যান। প্রতিটি স্প্যানের ওজন প্রায় ২৯শ’ টন। আর এই স্প্যান বহনের জন্য দেশের সবচেয়ে বেশি ৩৬শ’ টন ক্ষমতার ভাসমান ক্রেন প্রকল্প এলাকায় অপেক্ষায় রয়েছে।

এ পর্যন্ত মূল সেতুর বটম পাইল হয়েছে ৪৬টি। গত শনিবার আরো একটি বসানো হয়েছে। এর মধ্যে ১৯টি পাইলের টপ সেকশন সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়া ৩৭ নম্বর পিলারে দুটি পাইল কংক্রিটিংয়ের কাজ চলছে। জাজিরা প্রান্তে ভায়াডাক্টের পাইল স্থাপনে হাফ সেঞ্চুরি অতিক্রম করেছে। এই সংযোগ সেতুর ৫৫টি পাইলেরই কংক্রিটিং শেষ হয়ে গেছে। পুরোদমে এখানে কাজ চলছে।

এখন কাজের এই গতি মাওয়া প্রান্তেও ছড়িয়ে দিতে চূড়ান্ত প্রস্তুতি চলছে। মাওয়া প্রান্তে ভায়াডাক্টের (সংযোগ সেতু) পাইল স্থাপন সময়ের ব্যাপার মাত্র। মাওয়া প্রান্তের নদীতে ৪ ও ৫ নম্বর পিলারের বটম সেকশন পাইল স্থাপনের সরঞ্জামাদি সেট করা হয়েছে। শিগগিরই এর ড্রাইভও শুরু হচ্ছে।

Top