আজ : বুধবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর খানসামায় গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহি লাঠি খেলা অনুষ্ঠিত

সময় : ১:২৭ অপরাহ্ণ , তারিখ : ০৯ মার্চ, ২০১৭


সকল নিউজ আপডেট পেতে লাইক বাটনে ক্লিক করুন

সুলতান মাহমুদ , দিনাজপুর প্রতিনিধি:দিনাজপুর খানসামায় গ্রাম বাংলা হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যবাহি লাঠি খেলার আয়োজন

করা হয়েছে । অনেক দুর দুরান্ত থেকে লাঠি খেলা দেখার জন্য কয়েক হাজার নারী পুরুষ

দর্শক উপস্থিত ছিল ।

আজ বৃহস্পতিবার বিকাল ৩ টার দিকে উপজেলার হেলি র্পোট মাঠে এই লাঠি খেলার

আয়োজন করা হয় ।

খানসামা আশার আলো যুব সংর্ঘের আয়োজনে এই লাঠি খেলার আয়োজন করা হয় ।

এই লাঠি খেলায় দুটি দল বীরগঞ্জ বড় করিমপুর নাটের হাট লাঠিয়াল দল বনাম খানসামা

জয়গঞ্জ লাঠিয়াল দল অংশ গ্রহন করেন। লাঠি খেলায় দুই দলের দুজন করে খেলোয়ার মাঠে

লাঠি ঘুরানো প্রর্দশন করে । একে অপরকে লাঠি দিয়ে আঘাত করার চেষ্ঠা করে অপর জন

লাঠির আঘাত লাঠি দিয়ে প্রতিরোধ করে । এই ভাবে এক দলের ২০ জন করে খেলোয়ার

লাঠির ঘুরানোর কারুকার্য প্রর্দশন করে । মাঠের দুই পাশ্ধেসঢ়; কয়েক হাজার নারী পুরুষ

দর্শক উপস্থিত থেকে করতালীর মাধ্যমে খেলোয়ারদেরকে উৎসাহ প্রদান করেছে । লাঠি খেলার

পরিচালনা কমিটির বিচারে খানসামা জয়গঞ্জ লাঠিয়াল দল বিজয়ী হয়েছে ।

লাঠি খেলার আয়োজক আশার আলো যুব সংঘের সভাপতি বসির উদ্দীন জানায়, এই লাঠি

খেলা গ্রাম বাংলায় এক সময় ব্যাপক জনপ্রিয় একটি খেলা ছিল । কালের বির্বতনে এই

লাঠি খেলা হারিয়ে যেতে বসেছে । এই জনপ্রিয় লাঠি খেলাটিকে নতুন প্রজম্ম কাছে

পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য এই আয়োজন । এই লাঠি খেলা দেখার জন্য আমাদের খানসামা

উপজেলার অনেক গ্রামে আত্মীয় স্বজনকেও দাওয়াত করা হয়েছে এই লাঠি খেলার দেখার

জন্য । আজ এই লাঠি খেলা দেখার জন্য প্রায় ১০ হাজার লোক সমাবেত হয়েছে ।

লাঠি খেলা দেখতে আসা দর্শক ধীমান চন্দ্র রায় জানায় , বর্তমান সময়ে ক্রিকেট ,

ফুটবল খেলা নিয়ে নতুন প্রজম্মের ছেলেরা বেশি আগ্রহী দেখা যায় । কিন্তু বাংলা

ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা সম্পর্কে অনেক যুবকেরা ওয়াকিবহাল নয় । আজ লাঠি খেলা

দেখতে এসে সত্যি আনন্দিত । আমাদের গ্রামবাংলার হারিয়ে যাওয়া খেলাগুলো ধরে রাখতে

আরোও অনেক আয়োজকদের এগিয়ে আসা উচিত ।

লাঠি খেলার প্রধান পৃষ্ঠপোষক খানসামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাজেবুর রহমান

জানায় ,আমাদের গ্রাম বাংলার সংস্কৃতির অংশ লাঠি খেলা । এক সময় দাদা নানার কাছে

লাঠি খেলার গল্প শুনতাম । কিন্তু আজ এই খেলার পৃষ্ঠপোষক হতে পেরে সত্যি নিজেকে

গর্বিত মনে হচ্ছে । জীবনে অনেক খেলা ছাত্র জীবনে খেলেছি । কিন্তু লাঠি খেলা কোন

দিন খেলা হয়নি । আজ এই খেলা উদ্ধোধন ও নিজে মাঠে বসে থেকে উপভোগ করতে পেরে

গর্বিত মনে হচ্ছে ।

আপডেট নিউজ পেতে পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন

Top