আজ : শুক্রবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৭ ইং | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

পদবঞ্চনা নিয়েই ছাত্রদলকে গুডবাই জানাচ্ছেন তারা

সময় : ১১:৫৭ পূর্বাহ্ণ , তারিখ : ২২ মার্চ, ২০১৭


নিজস্ব প্রতিবেদকঃবরিশাল জেলা ও মহানগর ছাত্রদলে অবশেষে সিনিয়র সিন্ডিকেট প্রথা ভাঙ্গতে যাচ্ছে।কেন্দ্রীয় কমিটি এবার অনড় তরুন নেতৃত্ব দিয়ে দলের কমিটি গঠন করতে।ফলে হাজারো লবিং তদ্বির করে পন্ডশ্রম নিয়েই ঘরে উঠতে হচ্ছে দাদুভাই খ্যাত নেতাদের।

সুত্রের প্রকাশ, বরিশাল জেলা ও মহানগরে বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে সর্বশেষ ২০০৩ সালে কমিটি গঠন করা হয়েছিল।যাতে মনোয়ার হোসেন জিপুকে সভাপতি এবং পারভেজ আকন বিল্পবকে সাধারন সম্পাদক করে বরিশাল জেলা এবং মশিউল আলম সেন্টুকে সভাপতি ও জিএম আতায়ে রাব্বিকে সাধারন সম্পাদক করে মহানগরে পুর্নাঙ্গ কমিটি হয়।এর পরে ২০১৭ সাল পর্যন্ত আর সভাপতি-সম্পাদকের মুখ দেখেনি জেলা ও মহানগর ছাত্রদল।পরে ১/১১ রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট দলের ভ্নদশা কাটিয়ে ২০১১ সালে জেলা ও মহানগরে কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে আহবায়ক কমিটি গঠন করে ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদ।এতে জেলায় আহবায়ক করা হয় সাবেক কমিটির সহসভাপতি মাসুদ হাসান মামুন ও সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক করা হয় সাবেক সহসভাপতি এইচএম তসলিম ও সাবেক সহসাধারনসম্পাদক নুরুল আমিন কায়েস।এছারা যুগ্ন আহবায়ক করা হয় প্রায় ১০ জনকে।অন্যদিকে মহানগরে আহবায়ক করা হয় সাবেক কমিটির সহসভাপতি খন্দকার আবুল হাসান লিমন ও সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক করা হয় সাবেক কমিটির সহসভাপতি আফরোজা খানম নাসরিন ও মাজহারুল ইসলাম জাহানকে।এছাড়াও ঐ কমিটিতে যুগ্ন আহবায়ক করাহয় ১৩ জনকে।এরপর ২ দফায় কেন্দ্রীয় কমিটি পরিবর্তন হলেও হয়নি বরিশালের কমিটি।।

শহিদুল হাসান আনিচ বিগত সেন্টু -রাব্বির কমিটির প্রচার সম্পাদক ছিলেন।সর্বশেষ মহানগরের যুগ্ন আহবায়ক থেকে নতুন কমিটিতে সভাপতি সম্পাদকের জন্য লবিং করছিলেন তিনি।কিন্তু বয়সগত দিক থেকে আটকা পড়ে গেছেন এ নেতা।তিনি এসএসসিতে ২০০০ সালের আগে পাশ করেছেন।ফলে পদবঞ্চনা মাথায় নিয়ে যুগ্ন আহবায়ক পদবী নিয়েই — —বিদায় নিতে হচ্ছে তাকে। মহানগরের অপর যুগ্ন আহবায়ক মশিউর রহমান মঞ্জু বিএনপির যুগ্নমহাসচিব মজিবর রহমান সরোয়ারের সিলেক্টড পার্সন ছিল।তাকে নতুন কমিটিতে সভাপতি করতে যার পর নাই তৎপড়তা চালিয়েছেন সরোয়ার।তিনিও বয়সের সীমাবদ্ধতায় আটকা পড়ে ঘটিয়ে বসেছেন অবাক কান্ড।খোদ বিএনপির রাজনীতিকেই গুডবাই জানিয়ে দিয়েছেন ।এ প্রসঙ্গে মঞ্জু এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন মাঠের কর্মীদের মুল্যায়ন বিএনপি করেনা।তাই তিনি দল থেকে সড়ে দাড়িয়েছেন।১লা জানুয়ারী নিজেরাই এক অনুষ্ঠান করে বিদায় নিয়েছেন জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক এইচ এম তসলিম,মহানগরের যুগ্ন আহবায়ক আমিনুল ইসলাম লিপন,জাহিদুল ইসলাম সমীর ও জাবের বদুল্লাহ সাদী।কিন্তু সভাপতি/সম্পাদকের তকমা গায়ে লাগাতে পারেনি এরাও।মহানগরের সিঃযুগ্ন আহবায়ক আফরোজা খানম নাসরিন।তিনি মহানগরে সভাপতি পদের জন্য ব্যাপক তদ্বির চালিয়েছেন।কিন্তু বয়সের ভারে তিনি ছিটকে পড়েছেন।তিনি যুবদলে এখন ভাল পদের জন্য ট্রাই করছেন।তবে সিনিয়ররা সড়ে দাড়ানোয় এখন নতুন উদ্যমে মাঠে নামছে তরুনরা।এদের মধ্যে জেলায় ইয়াসির আরাফাত মিন্টু,সাইফুল ইসলাম সুজন,সোহেল রাঢ়ী।মহানগরে আরিফুর রহমান মুন্না, আরিফুল ইসলাম জনি,মাহফুজুল আলম মিঠু,তরিকুল ইসলাম তরিক উললেখযোগ্য।

এবিষয়ে ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি রাজিব আহসান মুঠোফোনে জানান,খুব শীঘ্রই বরিশালে ছাত্রদলের কমিটি করা হবে।তিনি সাফ জানিয়ে দেন যাদের এসএসসি ২০০০সাল বা তার পরে তাদের নিয়ে যোগ্যতানুসারে করা হবে কমিটি।

Top