আজ : সোমবার, ২১শে আগস্ট, ২০১৭ ইং | ৬ই ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

পিরোজপুরে আওয়ামী লীগের ১৭ জন মনোনয়নপ্রত্যাশী

সময় : ৭:২০ অপরাহ্ণ , তারিখ : ১৩ আগস্ট, ২০১৭


একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে পিরোজপুরের ৩টি আসনে আওয়ামী লীগের ১৭ জন মনোনয়নপ্রত্যাশী প্রস্তুতি নিচ্ছেন। স্থানীয়ভাবে জনসমর্থন ও গ্রহণযোগ্যতা যারা সবচেয়ে ভালো হবে তিনিই পাবেন একাদশ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন।

এক্ষেত্রে সংসদীয় আসনে পুরনো অনেক প্রার্থী ইমেজ সংকটে পড়েছেন। এ সুযোগ কাজে লাগাতে অনেক নতুন প্রার্থী দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন।

গত নির্বাচনে তিনটি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগ জয়লাভ করে একটি আসনে। জাতীয় পার্টি (জেপি) একটি আসনে। বাকি একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়লাভ করেন।

ফলে এবার প্রতিটি সংসদীয় এলাকায় নতুন কিছু সম্ভাব্য প্রার্থী ইতোমধ্যে ব্যানার, ফ্যাস্টুন, বিভিন্ন শুভেচ্ছা পোস্টার দিয়ে প্রার্থিতার ঘোষণা দিয়েছেন।

এর মধ্যে পিরোজপুর-১ (পিরোজপুর সদর-নাজিরপুর-নেছারাবাদ) আসনে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা হলে বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ.কে. এমএ আউয়াল, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক, ‘টক-শো’ ব্যক্তিত্ব ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি শ.ম রেজাউল করিম, পিরোজপুরের পৌর মেয়র, আওয়ামী লীগ সদস্য হাবিবুর রহমান মালেক, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, সাবেক এমপি এবং বিশিষ্ট আইনজীবী প্রয়াত এনায়েত হোসেন খানের জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ এ্যানি রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য ও সাবেক জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শাহ আলম ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাজ্জাদ সাকিব বাদশা।

পিরোজপুর-২ (কাউখালী-ভান্ডারিয়া-ইন্দুরকানী) আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীরা হলেন জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সম্পাদক ইসাহাক আলী খান পান্না, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমএ হাকিম হাওলাদার, ভান্ডারিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম ও আওয়ামী সমবায় লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আমিনুর রহমান ছগির।

পিরোজপুর-৩ (মঠবাড়িয়া) আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীরা হলেন জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ডা. আনোয়ার হোসেন, মঠবাড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌরসভার মেয়র রফিউদ্দিন আহম্মেদ ফেরদৌস, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মহিউদ্দিন মহারাজ, মঠবাড়িয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য, ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য তাজউদ্দিন আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা ডা. এম. নজরুল ইসলাম।

অন্যদিকে বর্তমান স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির সাবেক সাংসদ, ইসলামী আন্দোলনের ঘোষিত প্রার্থী রুস্তুম আলী ফরাজী আওয়ামী লীগে যোগ দেবেন এ নিয়ে এলাকার সর্বত্র গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, জেলার সাতটি উপজেলা ও তিনটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত ৩টি আসন। সম্প্রতি নির্বাচন কমিশনের ঘোষণায় ব্যাপক পরিবর্তন হয় জেলার এ ৩টি নির্বাচনী এলাকার সীমানা। সীমানা পুনর্বিন্যাস হওয়ায় পাল্টে গেছে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের পূর্বের হিসাব-নিকাশ। আগে পিরোজপুর সদর, নাজিরপুর ও ইন্দুরকানী উপজেলা সমন্বয়ে ছিল পিরোজপুর-১ আসন। বর্তমানে যুক্ত হয়েছে স্বরূপকাঠি উপজেলা। কাউখালী-ভান্ডারিয়া ও ইন্দুরকানী পিরোজপুর-২ আসনে সংযুক্ত হয়েছে। একক মঠবাড়িয়া উপজেলা নিয়েই আছে পিরোজপুর-৩।

Top