আজ : শনিবার, ১৯শে আগস্ট, ২০১৭ ইং | ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

প্রতিমন্ত্রী চুমকিকে নিয়ে মিথ্যাচারে ডেনমার্ক ছাত্রলীগের প্রতিবাদ

সময় : ৪:১০ অপরাহ্ণ , তারিখ : ২৭ মে, ২০১৭


মহিলা ও শিশু-বিষয়কপ্রতিমন্ত্রী বেগম মেহের আফরোজ চুমকিকে নিয়ে মিথ্যাচার ও তার সাথে বেয়াদবি করায় প্রতিবাদ জানিয়েছে যৌথভাবে ডেনমার্ক যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগ। শুক্রবার এক বিবৃতিতে এ প্রতিবাদ জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, প্রতিমন্ত্রী বেগম মেহের আফরোজ চুমকিকে নিয়ে ডেনমার্কের কিছু বহিষ্কৃত, পদলোভি, সুবিধাবাদি কর্তৃক ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের নামে প্রেস বিজ্ঞপ্তি আমাদের দৃষ্টি কটু হয়েছে। কিছু অনলাইন সংবাদ মাধ্যমে আমরা দেখতে পেলাম ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ থেকে ৫ (পাঁচ) বছরের জন্য সাসপেন্ড এম এ লিঙ্কন মোল্লা নিজেকে নব-নির্বাচিত সভাপতি এবং ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ থেকে সদ্য অব্যাহতি প্রাপ্ত রোহিঙ্গা সাব্বির আহম্মেদকে সাধারণ সম্পাদক পরিচয় দিচ্ছেন। এই পদলোভীরা পদের জন্য সংগঠনের গঠনতন্ত্রকে প্রশ্নবিদ্ধ করা শুরু করেছেন।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, গত ১৯ মে কোপেনহেগেনের হোটেল বেলা স্কাইতে প্রতিমন্ত্রী বেগম মেহের আফরোজ চুমকির আগমনে ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ থেকে ৫ (পাঁচ) বছরের জন্য দল থেকে সাসপেন্ড লিংকন মোল্লা ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের ব্যানারে কোন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ না করার জন্য প্রতিমন্ত্রীকে প্রস্তাব দিলে উপস্থিত ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ, ডেনমার্ক যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দরা প্রতিবাদ করেন। নেতৃবৃন্দরা প্রতিমন্ত্রীকে অবহিত করেন বিশিষ্ট সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরীকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করায় ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ থেকে লিংকন মোল্লাকে পাঁচ বছরের জন্য সাসপেন্ড ও সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দদের কটূক্তি করায় সাব্বির মুন্সি দল থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

এ সত্য সামনে চলে আসায় প্রতিমন্ত্রী সামনে সাব্বির মুন্সি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে উপস্থিত নেতৃবৃন্দদের গালাগালি ও হৈচৈ শুরু করেন। ডেনমার্ক যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দরা সাব্বির মুন্সির দিকে তেড়ে গেলে নিরাপত্তার কর্মী ও ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। পরে হোটেল নিরাপত্তা কর্মীরা লিংকন মোল্লা ও সাব্বির মুন্সিকে হোটেল থেকে বের করে দেয়া হয়।

ডেনমার্কে আওয়ামী লীগের মূলধারা (মোস্তফা মজুমদার বাচ্চুকে সভাপতি ও মাহবুবুর রহমান সাধারন সম্পাদক) নেতৃত্বে প্রতিমন্ত্রী বেগম মেহের আফরোজ চুমকির জন্য আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে লিঙ্কন-মুন্সিরা বাধা দেওয়ার চেষ্টা চালায়। সকল বাধা উপেক্ষা করে প্রতিমন্ত্রী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেয়াতে প্রতিমন্ত্রীকে নিয়ে লিঙ্কন-মুন্সিরা মিথ্যাচার শুরু করে। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেয়াতে প্রতিমন্ত্রীকে জ্ঞান দিতে গিয়ে লিঙ্কন মোল্লা নিজেই সংবাদ মাধ্যমে লিখেছেন, ‘আপা আপনার বক্তব্যে আমরা অনেক খুশি হয়েছি তবে, আপনি যদি আমাকে বলতেন ব্যানার নামাতে! আমি বলতাম, আপা দয়া করে আপনার আসার প্রয়োজন নেই।’ কিন্তু এই লিঙ্কনদের দাবি ছিলো, ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের ব্যানারে কোন অনুষ্ঠানে গেলে আমাদের আপত্তি আছে। সাবেক জাতীয় পার্টির কর্মী লিঙ্কন মোল্লা এখন নিজেকে ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের বড় রাজনিতিবিদ ভেবে প্রতিমন্ত্রীকে জ্ঞান দিতে শুরু করেন। এ বেয়াদবির আমারা প্রতিবাদ জানাই।

এর আগেও এই লিঙ্কন মোল্লা বিশিষ্ট সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরীকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেন, লিঙ্কন-মুন্সিরা সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি শ্রী অনিল দাশ গুপ্ত ও সাধারণ সম্পাদক এম এ গনিসহ সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দদেরকে সর্বদা কটূক্তি করেন।

প্রতিমন্ত্রী বেগম মেহের আফরোজ চুমকিকে নিয়ে মিথ্যাচার ও তার সাথে বেয়াদবি করায় ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ থেকে ৫ (পাঁচ) বছরের জন্য সাসপেন্ড এম এ লিঙ্কন মোল্লা ও ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ থেকে সদ্য অব্যাহতি প্রাপ্ত রোহিঙ্গা সাব্বির আহম্মেদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দসহ সর্ব ইউরোপেয়ান আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি।

Top