আজ : সোমবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

বরিশাল জেলা ব্রান্ডিং লোগো সিলেক্ট করন অবহেলায় ফেঁসে যেতে পারে প্রশাসনিক কর্মকর্তারা

সময় : ২:৩৭ অপরাহ্ণ , তারিখ : ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৭


আপডেট নিউজ পেতে পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন

ব্যাপক প্রচারনা প্রতিযোগিতা ও ভোটিং এর মাধ্যমে ১৩ জুলাই নির্বাচিত বরিশাল জেলা ব্রান্ডিং এর লোগো সিলেক্ট করেন বরিশালে সদ্য বিদায়ি জেলা প্রশাসন গাজী সাইফুজ্জামান, প্রায় ৯০টি লোগোর মাঝে ১১ সদস্য বিশিষ্ট মূল্যায়ন কমিটি সিলেকশন এ ১ম স্থান পায় ইঞ্জিনিয়ার জিহাদ রানার ৬ টি লোগোর মাঝে ১ টি লোগোটি,

পরবর্তি জেলা প্রশাসক এ পরিবর্তন আশা ফলে কোন এক অদৃষ্ট কারনে সেই লোগোটি জেলা প্রশাসন থেকে অঘোষিত ও নিদিষ্ট কারন ছাড়া বাতিল করে সেখানে অন্য লোগো পাঠানো হয়, প্রধানমত্রীর কার্যলয় যা সম্পূর্ণ রুপে বিজয়ী প্রাথীর অগোচর এ নিয়ে উক্ত লোগো ডিজাইনার বর্তমান অবস্থান জানতে বরিশাল জেলা প্রশাসনএ এডিসি (জেনারেল) জাকির হোসেন এর সাথে ম্যাসেজ এ যোগাযোগ করতে তিনি এটি A2i থেকে বাতিল করা হয়েছে বলে জানান, এবং তারা বিজয়ী ডিজাইনার কে না অবহিত করে নতুন ভাবে লোগো তৌরি করে পাঠান
কিন্তু উক্ত বিষয়ে এটু আই কর্মকর্তা (সহকারি কমিশনার) জনাব রাসেদুল ইসলাম তানজির, এর এক কমেন্ট এর মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া গেছে উক্ত বিষয়ে A2i শুধু পরামর্শ ও দিক নির্দেশনা প্রদান করতে পারে তবে সিলেকশন ও চুড়ান্ত করন জেলা প্রশাসন থেকে।

এ বিষয় বরিশাল জেলা প্রশাসন এর অন্য এক কর্মকর্তা সহকারী কমিশনার জনাব নাহিদ করিম এর সাথে ম্যাসেজ আলাপনে নিশ্চিত হওয়া যায় উক্ত লোগোতে কন্টেন্ট বেশি থাকায় A2i থেকে সংশোধন এর আহব্বান করেন, তবে ডিজাইনার সিলেকশন এ কোন নিষেধাজ্ঞা ছিল না।
লোগো সিলেক্ট হবার পরে একটি মহলের সুদৃষ্ট আক্ষেপ ও বিরোধিতা লক্ষ করা গিয়েছিল হয়তো সে ক্ষমতা বলে ডিজাইনার কে বাতিলের ব্যাবস্থা করা হয়েছিল বলে বিশেষ প্রামান ও স্কিন শট রয়েছে বলে জানা যায়, যা থেকে হয়তো বেড়িয়ে আসতে পারে এই পরিবর্ত এর পিছনে কারন গুলো।

উক্ত বিষয়ে, ডিজাইনার এর সাথে আলোচনা কালে তিনি বলেন যেহেতু এটা আমার ডিজাইন এর সিলেকশন এর পরে আমি বিদায়ী জেলা প্রশাসক ও সংশ্লিষ্ট সকলের চাহিদা মোতাবেক সংশোধন ও পরিবর্ত এ সক্ষম বলে

জানিয়েছি তবে কেন আমাকে না জানিয়ে এই সিদ্ধান্ত গ্রহন! এ বিষয় তিনি ন্যায্য অধিকার দাবি করেন।
এ বিষয় ঢাকা হাইকোর্ট এ জিহাদ রানার পক্ষে এডভোকেট জনাব আল-আমিন বলেন, যেহেতু আমার মক্কেল তার ন্যায্য অধিকার থেকে কেন বঞ্চিত এবং কেন তাকে ডাকা হল না বিষয়ে আমরা প্রয়োজন এ সর্বচ্চ আদালত এ বিচার যাবো এবং যদি উক্ত বিষয় গাফিলতি বা ব্যাক্তি স্বর্থ কারো সংশ্লিষ্টতা থাকে সেটা আমরা বিচারক এর কাছে তুলে ধরবো।

উল্লেখিত আছে যে এবারের জেলা ব্রান্ডিং এ লোগো হিসাবে প্রতিটি জেলা তাদের নিজেস্ব ও স্থানিয় জি আই পন্য কে প্রাধান্য দিয়ে জেলা ব্রান্ডিং করবে, তার প্রেক্ষিতে প্রতিযোগিতায় লোগো উপস্থাপিত হয়, কিন্তু বর্তমানে যে লোগোটি পাঠানো হয় তাতে জেলার কোন জি আই পন্য কে উপ্স্থাপন ও করা হয়নি।

আপডেট নিউজ পেতে পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন

Top