আজ : মঙ্গলবার, ২৭শে জুন, ২০১৭ ইং | ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

মস্তিস্কের কতটুকু আমরা ব্যবহার করতে পারি?

সময় : ১০:০৪ পূর্বাহ্ণ , তারিখ : ২১ মার্চ, ২০১৭


মস্তিষ্ক হচ্ছে যেকোন প্রাণীর সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট বা সংক্ষেপে সিপিইউ। প্রসেসর, র‍্যাম, রম যাই বলুন না কেন, সব ধরনের কার্যক্রমই এখানে নিয়ন্ত্রিত হয়। মানব মস্তিষ্কের গঠন এবং ক্ষমতা নিঃসন্দেহে অনেক বেশি। কিন্তু এক জীবনেতার কতটুকু ব্যবহার করতে পারি আমরা?

কেউ কেউ হয়ত ভাবেন আমরা আমাদের মস্তিষ্কের মাত্র ১০ শতাংশ কাজে লাগাতে পারি। আর বাকি ৯০ শতাংশ থেকে যায় অব্যবহৃত। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে এসব ধ্যানধারণা ভুল বলে প্রমাণিত হয়েছে। আসলে আমরা যখন কোন সামান্য হাত মুঠ করে ধরার মত সহজ কাজও করি তখনও ব্রেইনে ১০% এর বেশি লোড পড়ে। এমনকি কিছু না করে শুধু অলস সময়কাটালেও মস্তিষ্ক ঠিকই সক্রিয় থাকে। কেননা আমাদের শরীরের মধ্যে যেসব অনৈচ্ছিক পেশি আছে (উদাহরণস্বরূপ হৃদপেশি) সেগুলোতে সঠিক নির্দেশনা দিতে মস্তিষ্কের বিকল্প নেই।

আমাদের স্নায়ুকোষগুলোব ­বেশ ভালোই ‘রিসোর্স হাংর’; এরা শ্বাসের সাথে গৃহীত অক্সিজেনের প্রায় ২০% নিয়ে থাকে। আর রক্তের গ্লুকোজ তো তাদের খাদ্য তালিকায় আছেই।

বিজ্ঞানীরা বলেন, কোন রকম নিউরোলজিকাল রোগ/কন্ডিশন না থাকলে আমরা সবাই আমাদের মাথার পুরো অংশই ব্যবহার করি। আমাদের মাথা সারাক্ষণই এক্টিভ, এবং আপনি জেনে না জেনে, জাগ্রত/ঘুমন্ত অবস্থায় যা করছেন, সবকিছুতেই আপনার ব্রেইন জড়িত আছে। এবং গড়ে আপনার দেহের শক্তির প্রায় ২০% সে সারাক্ষণই ব্যবহার করছে, তা আপনি বই পড়ুন, বা ক্রিকেট খেলুন। এ কথা সত্য যে ট্রেইনিং/ প্র্যাক্টিস/ পড়া শোনার মাধ্যমে আপনি আপনার বুদ্ধি আরো শানিত করতে পারেন, আপনার মাথাকে আরো খোলাসা করতে পারেন, কিন্তু তার মানে এই নয় যে তখন আপনি আপনার মাথার আরো বেশি অংশ ব্যবহার করবেন, আর এখন কম করছেন। মানব মস্তিষ্কের অনেক কিছুই এখনো গাঢ় রহস্যময়, কিন্তু ব্রেইনের যতটুকু অংশ আমরা জেনেছি, প্রত্যেক অংশেরই সুনির্দিষ্ট কাজ আছে, এবং সেটা সব সুস্থ মানুষের ক্ষেত্রেই সেই সব অংশ একই কাজ করছে।

Top