আজ : বৃহস্পতিবার, ২৪শে আগস্ট, ২০১৭ ইং | ৯ই ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

মূল সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদ বিচার করার ক্ষমতা আদালত রাখে না’

সময় : ৬:৪৯ অপরাহ্ণ , তারিখ : ১১ আগস্ট, ২০১৭


অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, সংসদ আইন প্রণয়ন করবে। এবং সংবিধান হলো সবার উপরে। যে কথাটি আামি বারে বারে বলেছি। সংবিধানের আদি কোন অনুচ্ছেদ কোন বিচার বিভাগ সেটা ভাল কিংবা মন্দ সে সম্পর্কে বলতে পারবে না। আদালত ক্ষমতা প্রাপ্ত হবেন তখনই যখন সংবিধান সংশোধন হয়। যেখানে মূল সংবিধানে ফিরে যাচ্ছি। সংবিধানের সংশোধনীর দ্বারা মূল সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদ ফিরে যাওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এবং আমি এ কথাও বারে বারে বলেছি, যে আইন হবে সে আইনে বিচার বিভাগর স্বাধীনতার জন্য যত রকম কিছু সেভ গার্ড থাকা দরকার সেটা থাকবে। এবং সে আইনটাকে অসংবিধানিক ভাল মন্দ সব বিচার করার ক্ষমতা আদালতের থাকবে। কিন্তু মূল সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদকে কোন আদালত এটা বিচার করার ক্ষমতা রাখে না।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রিভিউ রায়ে ছিল মার্শাল তে জারি করা সমস্ত ফরমান আইন এগুলো অবৈধ। তবে রাষ্ট্রপরিচালনার কাজে একটি নির্দিষ্ট সময় পর‌্যন্ত বৈধতা দেয়া হলো। তারপরও আর না। সুপ্রিমজুডিশিয়াল কাউন্সিল নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, এ সম্পর্কে আমি কোন মন্তব্য করবো না। আইন করা হবে কিনা সেটা সংসদের ব্যাপার আর বিচারপতিরা সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল বৈঠকে বসেছেন এটা ওনাদের ব্যাপার।

এ অবস্থায় জুডিশিয়াল কাউন্সিল কোন সিদ্ধান্ত নেয় সেটা যুক্তিযুক্ত কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমি কোন মন্তব্য করবো না। দেখি কি হয়।
আদালত আজ যখন সকালে বসেছিল সকাল নয়টায় তখন বিএনপি পন্থী কয়েকজন আইনজীবী বারের সভাপতি সম্পাদকও ছিলেন । তারা কতগুলি সংবাদ পত্র নিয়ে আদালতর দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করেছেন বিচারপতি খায়রুল হক সাহেবের এই ষোড়শ সংধোনীর বিষয়ে তিনি যে মন্তব্য দিয়েছেন তার বিষয়ে ওনারা বলতে চেয়েছেন এতে আদালত অবমাননা হয়েছে।

প্রধান বিচারপতি বলেছেন, সুপ্রিমকোর্টের রায় নিয়ে এই ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে কেউ যাতে কোন রাজনীতি না করে। কেউ যাতে এটা রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার না করে। ওনি বলেছেন ,রায় দিয়েছেন এটা আদালতের বিষয়। যারা রাজনীতি করবে এটা তাদের বিষয় হতে পারে না।

Top