আজ : বৃহস্পতিবার, ২৯শে জুন, ২০১৭ ইং | ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

যে অভ্যাসগুলো বিপদ ডেকে আনছে আমাদের

সময় : ১০:৩৭ পূর্বাহ্ণ , তারিখ : ০৯ মার্চ, ২০১৭


দৈনন্দিন জীবনে সুস্থ থাকতে আমরা কতো কিছুই না করে থাকি। কিন্তু এমন কিছু অভ্যাসও আছে যা অজান্তে বিপদ ডেকে আনছে আমাদের। যেমন, ফ্যাশন ট্রেন্ডের সাথে তাল মিলিয়ে স্কিন টাইট জিন্‌স পরতে ভালোবাসেন অনেকেই। কিন্তু, নিজেকে যতই ট্রেন্ডি করে তুলুন না কেন, এতে ক্ষতি হচ্ছে আপনারই। দৈনন্দিন জীবনে এ ধরনের বহু অভ্যাস রয়েছে যাতে লাভের থেকে লোকসানই করে বেশি। সেগুলি কী কী তা জেনে নিন আজকের প্রতিবেদন থেকে।

> রোজকার প্রসাধনে পারফিউম তো মাস্ট। কিন্তু, ন্যাচারাল অয়েল ছাড়া কৃত্রিম উপাদান দিয়ে তৈরি পারফিউম ব্যবহারের ফলে ক্ষতিও হতে পারে। মাথা ঘোরা, বমি বমি ভাব ছাড়াও চোখে, গলায় বা ত্বকের সমস্যা দেখা দিতে পারে। পারফিউম বদলে এসেনশিয়াল অয়েল মাখতে পারেন। তবে তা মেখে অবশ্যই খোলামেলা ঘরে থাকুন।

> ফ্যাশনেবল মনে হলেও টাইট জিন্‌স পরাও বেশ বিপদের। নিয়মিত টাইট জিন্‌স পরলেতা স্নায়ুর উপর চাপ সৃষ্টি করে। এমনকী, আপনার পা অবশও হয়ে যেতে পারে। তাই এই ফ্যাশন থেকে দূরে থাকাটাই ভালো।

> অফিসে মিটিংয়ের মাঝেই হঠাৎ হাঁচি পায় আপনার? উপায় না পেয়ে নাক-মুখ ধরে হাঁচি চেপে রাখেন! খুব সামান্য মনে হলেও এতে কিন্তু যথেষ্ট ক্ষতি হতে পারে। চিকিৎসকেরা জানান, হাঁচি এলে তা চেপে রাখলে ইন্ট্রাক্রেনিয়াল প্রেসার বেড়ে যায়। এতে মস্তিষ্কে রক্তের প্রবাহে বাধা পড়ে। এমনকী, রক্তনালী এবং স্নায়বিক টিস্যু সঙ্কুচিত হয়ে যায়। ফলে মাথাধরা বাড়তে পারে। রক্তনালীর ক্ষতিও হতে পারে। এমনকী, কানে কম শোনার সমস্যা হতে পারে।

> আজকাল প্লাস্টিক কন্টেনারে অনেকেই খাবার রেখে দেন। পরে ওভেনে তা গরমও করেন।অধিকাংশ কন্টেনারই বিসফেনলের মতো কৃত্রিম উপাদান দিয়ে তৈরি। যা কন্টেনারের নমনীয়তা বজায় রাখতে সাহায্য করে। প্লাস্টিক কন্টেনারে বহুক্ষণ খাবার রাখলে তাতে ওই উপাদান মিশে যায়। যা দেহের পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকারক।

> সাতসকালে ফলের রস খেতে পছন্দ করেন অনেকেই। তবে চিকিৎসকেরা জানান,জুসের বদলে গোটা ফল খেতে পারলে তা-ই খান। ফলের রস তৈরি করার সময়তার ফাইবার নষ্ট হয়ে যায়।

> খাওয়ার সাথে সথে ব্রাশ করলেও বিপদ! চিকিৎসকদের মতে খাওয়ার অন্তত আধা ঘণ্টা পরে ব্রাশ করা উচিত। সব ধরনের খাবার থেকেই কিছু না কিছু অ্যাসিড বের হয়। খাওয়ার সাথে সাথে ব্রাশ করায় সেই অ্যাসিড দাঁতে আরও ঘষে যায়। ফলে তা আপনার দাঁতের এনামেলের ক্ষতি করে। সম্ভব হলে খাওয়ার আধা থেকে এক ঘণ্টা পরে ব্রাশ করুন।

> অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল সাবান দিয়ে হাত-পা ধোওয়া বা গোসল করাও ক্ষতিকারক। এমন বহু ব্যাকটেরিয়া থাকে যা আমাদের ত্বকের পক্ষে উপকারী। নিয়মিত অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল সাবানে গোসল করলে দেহে ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া ঢুকতে পারে। ত্বক-বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, একমাত্র কেটে গেলেই এ ধরনের সাবান ব্যবহার করুন।

Top