আজ : সোমবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

সরকারের কারনে পানির ন্যায্য অধিকার আদায় হচ্ছে না

সময় : ৪:১৭ অপরাহ্ণ , তারিখ : ১৬ মে, ২০১৭


সরকারের কারনে আপডেট নিউজ পেতে পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন

সরকারের কারনে পানির ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত বাংলাদেশ এরকমটাই মন্তব্য করেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও সাবেক ছাত্রনেতা হাবিবুর রহমান হাবিব বলেছেন, ভারত উজানের রাষ্ট্র হিসাবে ভাটির দেশ বাংলাদেশের সঙ্গে সৎ প্রতিবেশী হিসাবে আচরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে। ফারাক্কা সমস্যা সামাধানে ব্যর্থ সরকার টিপাইমুখ বাঁধ নির্মাণের পক্ষে দেশের স্বার্থবিরোধী উকালতি করছে।

তিনি বলেন, যে সরকার ভারতের পানির আগ্রাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে পারে না, দেশের জনগণের কল্যাণ ও জনগণের মৌলিক চাহিদা পূরণ করতে পারে না, তাদের ক্ষমতায় থাকার অধিকার নেই।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ঐতিহাসিক ফারাক্কা লং মার্চের ৪১তম বার্ষিকী স্মরণে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি- বাংলাদেশ ন্যাপ ঢাকা মহানগর আয়োজিত ‘গঙ্গা-তিস্তাসহ ৫৪টি অভিন্ন নদীর পানির ন্যায্য হিস্যা আদায়ের দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধান বক্তার বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ন্যাপের নগর সদস্য সচিব মো. শহীদুননবী ডাবলুর সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম আহ্বায়ক অধ্যক্ষ নজরুল ইসলামের সঞ্চালনায় সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার, ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভূইয়া, জাতীয় পার্টির (জাফর) প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবিব লিংকন, জাতীয় দলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদা, জাগপা সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান, এনপিপি মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, বিএনপি ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি মুহাম্মদ ফরিদউদ্দিন, বিএনপির বাগেরহাট জেলা উপদেষ্টা ড. কাজী মনিরুজ্জামান মনির, ন্যাপ ভাইস চেয়ারম্যান কাজী ফারুক হোসেন, সম্পাদক মো. কামাল ভূইয়া, যুবনেতা আবদুল্লাহ আল কাউছারী, ছাত্রনেতা সোলায়মান সোহেল প্রমুখ।

অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, ফারাক্কা বাঁধের ফলে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল মরুভূমিতে পরিণত হয়েছে এবং টিপাইমুখ বাঁধ নির্মাণের মাধ্যমে আবারও দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল মরুভূমিতে পরিণত করার যে ষড়যন্ত্র চলছে তার বিরুদ্ধে দেশের সকল দেশপ্রেমিক শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

গোলাম মোস্তফা ভূইয়া বলেন, মজলুম জননেতা মওলানা ভাসানীর ঐতিহাসিক ফারাক্কা লং মার্চ ভারতের পানি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিবাদ। ভারত মূলত দুটি উদ্দেশ্যে পানির আগ্রাসন অব্যাহত রেখেছে। এর একটি হচ্ছে রাজনৈতিক। রাজনৈতিক কারণে পানির ব্যবহার করা আর রাষ্ট্র হিসাবে বাংলাদেশকে ব্যর্থ ও পঙ্গু রাষ্ট্রে পরিণত করা। ভারতের পানি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে মওলানা ভাসানীর মতো নেতৃত্ব তৈরি করতে হবে।

তিনি বলেন, ভারত যা বলে তা করে না, যা করে তা বলে না। আওয়ামী-বাকশালী চক্র ভারতের সঙ্গে যতগুলো চুক্তি করেছে সবগুলো জাতীয় স্বার্থবিরোধী। বর্তমান সরকার সাম্রাজ্যবাদ ও সম্প্রসারণবাদ শক্তির সহায়তার ক্ষমতায় টিকে থাকতে চায়। তাদের শেষ রক্ষা হবে না, হতে পারে

আর পড়তে ক্লিক করুন এখানে ‘সরকার বিচার বিভাগের হাত পা বেঁধে দিয়েছে’

আপডেট নিউজ পেতে পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন

Top