আজ : শনিবার, ২১শে জুলাই, ২০১৭ ইং | ৭ই শ্রাবণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

সুন্দর রাজনৈতিক সংস্কৃতি চান মওদুদ

সময় : ৬:০৫ অপরাহ্ণ , তারিখ : ২০ মে, ২০১৭


ঢাকা: ‘প্রতিহিংসা’ থেকে খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে পুলিশি তল্লাশি হয়েছে দাবি করে এই ধরনের হিংসাত্মক রাজনীতির অবসান প্রয়োজন বলে মত প্রকাশ করেছেন বিএনপি নেতা ব‌্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ।

শনিবার সকালে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে পুলিশের তল্লাশির পর দুপুরে সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে তিনি এই মন্তব‌্য করেন।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৬তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ‘বাংলাদেশের কৃষি ও পল্লি উন্নয়নে প্রেসিডেন্ট জিয়ার নীতি ও কর্মসূচি’ শীর্ষক এই আলোচনা সভার আয়োজন করে ‘অ্যাসোসিয়েশন অব ইউনিভার্সিটি টিচার্স’ নামের একটি সংগঠন।

এর আগে ‘অজ্ঞাতনামা’ একটি জিডির প্রেক্ষিতে ম‌্যাজিস্ট্রেটের আদেশ নিয়ে ‘রাষ্ট্রবিরোধী ও আইনশৃঙ্খলা পরিপন্থি নাশকতা সামগ্রীর খোঁজে’ খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে অভিযান চালায় পুলিশ। যদিও প্রায় আড়াই ঘণ্টা স্থায়ী ওই তল্লাশি অভিযানে কিছুই পাওয়া যায়নি।

এই অভিযানকে প্রতিহিংসামূলক আখ‌্যায়িত করে ব‌্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেন, ‘আজ দেশে কোনো রাজনীতি নাই। যে রাজনীতি আছে সেটি অপরাজনীতি। যার অনেক দৃষ্টান্ত আগেও দেখা গেছে। আজ সকালে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে তল্লাশির মাধ্যমে আবারো দেখা গেছে।’

বিএনপি প্রতিহিংসার রাজনীতির অবসান চায় জানিয়ে নতুন একটি রাজনৈতিক সংস্কৃতি গড়ে তোলার কথা জানান দলের স্থায়ী কমিটির এই সদস্য।

‘আমরা এই হীনমন্যতা, ছোট মনের রাজনীতি, প্রতিহিংসার রাজনীতির অবসান চাই। ভিশন-২০৩০ এ উল্লেখ করেছি যে, আমরা বাংলাদেশে নতুন সংস্কৃতি, হারিয়ে যাওয়া ভোটের অধিকার ফিরিয়ে আনব। দেশে এমন একটি রাজনৈতিক সংস্কৃতি গড়ে তুলব যাতে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম আরো সুন্দর দেশের নাগরিক হতে পারে।’

ভিশন-২০৩০ বাস্তবায়নের জন‌্য বিএনপিকে ক্ষমতায় যেতে হবে উল্লেখ করে দলটির এই নীতি নির্ধারক বলেন, ‘সুষ্ঠু ভোট হলে এবং তাতে মানুষ নির্বিঘ্নে ভোট প্রয়োগের সুযোগ পেলে আগামী নির্বাচনে বিএনপি সরকার গঠন করবে এবং ভিশন বাস্তবায়ন করবে।’

দলটির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ১৯ দফা কর্মসূচির ওপর ভিত্তি করে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা দলের ভিশন-২০৩০ জাতিকে উপহার দিয়েছেন বলেও এ সময় মন্তব‌্য করেন তিনি।

ইভিএম ভোট পদ্ধতির সমালোচনা করে প্রবীণ এই আইনজীবী বলেন, ‘দেশের মানুষ এখন পর্যন্ত যন্ত্র দিয়ে ভোটের বিষয়ে পরিপক্ক হয়ে ওঠেনি। যারা নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতি ব্যবহারের চিন্তা করছে তারা জনগণকে ভোটদানে বঞ্চিত, বিরত রাখতে এই ধরনের কৌশল গ্রহণ করেছে।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপির পক্ষ থেকে আগেও বলেছি, এখনও বলছি, বিএনপি ইভিএম পদ্ধতিতে নির্বাচন চায় না। বিএনপি স্বচ্ছ ব্যালট পেপার এবং ব্যালট বাক্স ব্যবহার করে নির্বাচন দেখতে চায়। একই সঙ্গে নির্বাচন হবে এমন একটি সরকারের অধীনে যে সরকারের কোনো রাজনৈতিক স্বার্থ থাকবে না।’

অধ্যাপক ড. মো. ইদ্রিস মিয়ার সভাপতিত্বে সভায় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল বক্তব্য রাখেন।

Top