আজ : বুধবার, ২২শে নভেম্বর ২০১৭ ইং | ৮ই অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

বেতাগীতে মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দূর্নীতির মামলা


সকল নিউজ আপডেট পেতে পেইজে লাইক দিন

উপবৃত্তির টাকা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ল্যাপটপ, সরকারি সম্পত্তি আত্মসাত, সনদ জাল-জালিয়াতি ও প্রতারণার অভিযোগ এনে বরগুনার বেতাগীতে এক মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দূর্নীতির মামলা করা হয়েছে।

উপজেলার বিবিচিনি ইউনিয়নের ফুলতলা মোহাম্মাদিয়া আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওঃ মোস্তাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে ওই প্রতিষ্ঠানের সাবেক গভর্নিং বডির সদস্য মোঃ নেছার উদ্দিন বাদী হয়ে বরগুনার বিজ্ঞ দায়রা জজ এবং বিশেষ ক্ষমতা প্রাপ্ত জজ আদালত ও ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা তৎসহ ৪০৯ দন্ডবিধি এ মামলা করেন। (মামলা নং-০৭/২০১৭)।

মামলা সুত্রে জানাগেছে, আলিম ১ম বর্ষের ইমা আকতার, রাবেয়া, সাদিয়া আকতার, ৮ম শ্রেণীর মোসাঃ নাজমার উপবৃত্তির ৭ হাজার ৮শ ৬০ টাকা অধ্যক্ষ নিজ মোবাইল হিসাবে উত্তোলন করেছেন। কম্পিউটার শিক্ষার বিগ্ন ঘটিয়ে সরকার প্রদত্ত কম্পিউটার ৩ বছর পুর্বে থেকেই আত্মসাত করেছেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ দলিল উদ্দিন খলিফার পুত্র মোঃহাবিবুর রহমানের দাখিল ও আলিম পরীক্ষা পাশের সনদ জাল-জালিয়াতি ও প্রতারনা, মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের সিল স্বাক্ষর যুক্ত করে কম্পিউটারের মাধ্যমে ১.৩৩ থেকে গ্রেড পরিবর্তন করে ২.৫৮ করে দেয় অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান। এ সনদ দিয়ে পুলিশের চাকরি নিতে গিয়ে মামলার শিকার হন হাবিবুর রহমান। হাবিবুর রহমানের বাবা মোঃ দলিল উদ্দিন খলিফা বলেন, আমার ছেলেকে অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান অনেক স্বপ্ন দেখিয়ে প্রতারণার দিকে ধাবিত করেছে। আমি তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থার দাবি জানাই। ফুলতলা মোহাম্মাদিয়া আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওঃ মোস্তাফিজুর রহমান দূর্নীতির কথা অস্বীকার করে বলেন, এসবই আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র।

এদিকে জানা যায়, মোস্তাফিজুর রহমান যখন অন্য একটি মাদ্রাসায় ছিল তখন সেই মাদ্রাসায় বসেও উপবৃত্তির টাকা, সরকারি সম্পত্তি আত্মসাত, সনদ জাল-জালিয়াতি করেছেন

Top