২০শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং, রবিবার

গ্রহণযোগ্য নির্বাচন না হওয়ার সংস্কৃতিতেই আজকের এ দুরবস্থা

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৮

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে কি না তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। নির্বাচন কমিশনের হিসাব অনুযায়ী আগামী অক্টোবর মাস থেকে মধ্য জানুয়ারির মধ্যে ভোট হওয়ার কথা।

কিন্তু সবচেয়ে বড় যে বিষয়, তা হলো নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে কি না। সরকারের শীর্ষ মহল থেকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে আগামী নির্বাচন বানচালের ক্ষমতা কারো নেই এবং তা নির্ধারিত সময়েই হবে। আর নির্বাচন নিয়ে বিরোধী দল বিএনপির সাথে আলোচনার বিষয়টিও নাকচ করে দেয়া হয়েছে।

রাজনৈতিক সূত্রগুলো বলছে, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় তা ছিল একতরফা। প্রধান বিরোধী দল বিএনপি ওই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি। তাদের জোট শরিক বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীও নির্বাচন বয়কট করেছিল এবং ওই সময় বিরোধী দলগুলো নির্বাচন বন্ধে সবধরনের চেষ্টা করেছিল। একটানা আন্দোলনে নির্বাচনকালীন দেশ অচল হয়ে পড়ে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, গ্রহণযোগ্য নির্বাচন না হওয়ার সংস্কৃতিতেই আজকের এ দুরবস্থা। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বিএনপির জন্য কাল হয়ে আছে। কিন্তু তা আওয়ামী লীগের জন্যও কি ভালো কোনো ফল বয়ে এনেছে? আগামীতে নির্বাচন গ্রহণযোগ্য না হলে সঙ্কট আরো ঘনীভূত হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইন বিভাগের অধ্যাপক বিশিষ্ট লেখক ও বিশ্লেষক ড. আসিফ নজরুল বলেন, আমাদের সংবিধান অনুযায়ী আগামী অক্টোবর থেকে মধ্য জানুয়ারির মধ্যে নির্বাচন করতে হবে। তবে এ নির্বাচন কবে হবে তা নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকেই বলার কথা। কিন্তু সরকারের একজন দায়িত্বশীল সিনিয়র মন্ত্রী যেভাবে বলে দিলেন তাতে সন্দেহ সৃষ্টির সুযোগ আছে। এমনিতেই এই নির্বাচন কমিশন নিয়ে কথা রয়েছে যে তারা

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন