আজ : সোমবার, ২১শে আগস্ট, ২০১৭ ইং | ৬ই ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

দলীয় প্রার্থীকে জেতাতে কুমিল্লা ছুটছেন সব দলের কেন্দ্রীয় নেতারা

সময় : ১০:১৫ পূর্বাহ্ণ , তারিখ : ২৩ মার্চ, ২০১৭


কুমিল্লা: নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই জমে উঠছে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা।

সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত নগরী জুড়ে চলছে নিজ নিজ প্রতীকের পক্ষে ভোট প্রার্থনা। প্রচার-প্রচারণায় অংশ নিতে দু’মেয়র প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নেমেছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কেন্দ্রীয়সহ সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।

সকল ভেদাভেদ ভুলে স্থানীয় বিএনপি নেতারা কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে কাজ করছেন। তারা যাচ্ছেন ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে। ভোট চাইছেন নিজ দলের প্রতীক ধানের শীষের পক্ষে।

অপরদিকে নৌকার পক্ষে কেন্দ্রীয় নেতারা মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, ছাড়া প্রচারণায় দেখা মিলছে অন্যান্য সহযোগী সংঠনের নেতা-কর্মীদের।

এদিকে কেন্দ্রীয় নেতারা কাজ করতে গিয়ে স্থানীয় নেতাদের খুব একটা সহায়তা পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন ৬ নম্বর ওয়ার্ডে দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন কেন্দ্রীয় নেতা। অনেকেই অভিযোগ করেছেন বাইরে থেকে এসে প্রচারণায় অংশ নিলেও স্থানীয় নেতারা তেমন সহযোগী করছেন না। ফলে ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে যাওয়াটা সহজ হচ্ছে না তাদের পক্ষে।

কারণ স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে ভোটারদের রয়েছে পরিচিতি। কেন্দ্রীয় নেতারা সেখানে একেবারেই অপরিচিত। তাই কয়েকটি ওয়ার্ড ছাড়া বেশির ভাগ ওয়ার্ডেই ডোর টু ডোর প্রচারণা হচ্ছে না নৌকার প্রার্থীর। যা প্রচারণা হচ্ছে তা উঠান বৈঠক ও মিছিল মিটিংয়ে সীমাবদ্ধ।

এদিকে সকল ভেদাভেদ ভুলে স্থানীয় বিএনপি নেতারা কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে কাজ করছেন। তাই তারা ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে বেশি যেতে পারছেন। দিচ্ছেন নানান প্রতিশ্রুতি।

অপরদিকে দেশের গুরত্বপূর্ণ এ নির্বাচনটি সুষ্ঠু ও অবাধ শান্তিপূর্ণ ভাবে সম্পন্ন করতে নানা ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। গেলো শনিবার দুপুরে নগরীর টাউনহল মিলনায়তনে প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থীদের সঙ্গে নির্বাচনী আচরণবিধি ও আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময় সভা করেন তিন নির্বাচন কমিশনার, সচিব ও স্থানীয় প্রশাসন।

সেসময় নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো সদস্যের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ পাওয়া গেলে তা কিছুতেই মানা যাবে না। নির্বাচন সংশ্লিষ্টদের কেউ কোনো গাফিলতি করলে আমরা বিন্দুমাত্র ছাড় দেব না। এ নির্বাচন আমাদের জন্য একটি কঠিন পরীক্ষা। এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে।

আসছে ৩০ মার্চ কুমিল্লা মহানগরের দু’লাখ সাত হাজার ৫৬৬ ভোটার নির্বাচিত করবে তাদের জনপ্রতিনিধি। এদের মধ্যে পুরুষ এক লাখ দু’হাজার ৪৪৭ জন এবং নারী এক লাখ পাঁচ হাজার ৫৬৬ জন। ৬৫টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ করা হবে ৪২১টি ভোটকক্ষে।

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে এবার মেয়র পদে তিনজন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১১৪ এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৪০ জন প্রার্থী লড়ছেন।

Top