আজ : সোমবার, ১৬ই জুলাই, ২০১৮ ইং | ১লা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিলীনের পথে শীতকালীন পিঠার ঐতিহ্য


নাটোর প্রতিনিধিঃ
শীত আসলেই মনে পড়ে সেই ছোট বেলার কথা। সকাল বেলা টাটকা খেজুরের রস সাথে মুড়ি, নানা রকম শীতের পিঠা, সাথে আরও কত স্মৃতি, সেসব আজ সবই আজ অতীত। কালের সাথে যেন হারিয়ে যাচ্ছে সেই ঐতিহ্য, সেসব যেন এখন শুধুই গল্পেরমত। গত কয়েক দশকের চেয়ে এবার বাংলাদেশে শীতের মাত্রা অনেক বেশি ছিল।। প্রতিবছরই শীতের আগমন থেকে শুরু করে শীতের শেষ পর্যন্ত দেশের ঘরে ঘরে চলে পিঠাপুলির উৎসব। পিঠা বাঙালির অন্যতম প্রিয় খাবার। এ দেশে এমন মানুষ কমই আছে, যারা পিঠা পছন্দ করে না। পিঠা নিত্যদিনের খাবার না হলেও শীতকালে ঘরে ঘরে পিঠার ব্যাপক কদর রয়েছে। উৎসব আয়োজনেই পিঠা নামের বাড়তি খাবার তৈরি করা হয়।

বর্তমানে শুধু বাড়িতে নয় বরং দেশের বিভিন্ন হাট বাজারেও হরেক রকমের পিঠার কদর বেড়েছে। শীতকালের এই পিঠা বিক্রি করে সারা দেশের ন্যায় নাটোরে শতাধিক মানুষ জীবিকা নির্বাহ করছে। সম্প্রতি সিংড়া উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে দিনব্যাপী উপজেলা কোর্টমাঠে চলনবিল পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। পিঠা উৎসবে ১১৭ প্রকার ঐতিহ্যবাহী পিঠা প্রদর্শিত হয়।
আগের দিনে শীতের শুরুতেই গ্রামগঞ্জের ঘরে ঘরে পৌষ পার্বনে রকমারী পিঠার আয়োজন করা হত। দাদী-নানী, মা, খালারা পরম মমতায় তৈরি করতেন বিভিন্ন ধরনের রসালো পিঠা। বাংলাদেশের গ্রাম-গঞ্জে হেমন্ত ঋতুর শুরু থেকেই পিঠা তৈরি শুরু হয়। তখন দেশজুড়ে ধানকাটা শুরু হয়। কৃষকের ঘরে ঘওে গোলাভরা ধান থাকে। নতুন সে ধানের আতব চালে তৈরি হয় পিঠা। এ সময় গ্রামে সন্ধ্যা হলেই চাল কোটার শব্দে মুখরিত হত চারদিক। রাতভর চলে পিঠা তৈরির কাজ। অনেকে আবার পিঠা তৈরির সময় গীত গেয়ে রাত পার করতেন। পিঠার অন্যতম উপাদান চালের গুঁড়ো হলেও এর সঙ্গে লাগে গুড়, ক্ষীরসহ নানা উপকরণ। এ উপকরণের সঙ্গে শীতের একটা যোগসূত্র আছে। তাই হেমন্ত থেকে শীতকাল পর্যন্ত পিঠা তৈরির ধুম পড়ে। বাংলাদেশে কত রকম পিঠা হয় তা বলে শেষ করা কঠিন। তবে জনপ্রিয় পিঠার মধ্যে চিতই, পাটিসাপটা, লরি পিঠা, ভাপা, আন্দশা, কুশলী, পাতা পিঠা, কাটা পিঠা, ছিট পিঠা, চুটকি পিঠা, মুঠি পিঠা, মেরা পিঠা, হাঁড়ি পিঠা, চাপড়ি পিঠা, নকশি পিঠা, পুলি পিঠা, জামাই পিঠা, ঝুরি পিঠা ও বিবিয়ানা পিঠা। এসব পিঠার সঙ্গে মিষ্টি বা ঝাল মিশিয়ে তৈরি করা হয় নতুন পিঠা। যেমন চিতই পিঠার সঙ্গে দুধ-গুড় দিয়ে তৈরি করা হয় দুধচিতই। চিতই পিঠার সঙ্গে কাঁচামরিচ ও ধনিয়া পাতা দিয়ে ঝাল পিঠাও তৈরি করা হয়।

খেজুরের রসে তৈরি নানা প্রকার পিঠা-পায়েস গ্রাম-বাংলার মানুষের নবান্নের সেরা উপহার। খেজুরের রস দিয়ে তৈরি করা হতো পাটালিগুঁড়, মিঠাইসহ নানা রকমের মজার মজার খাবার। সময়ের পরিবর্তনে হারিয়ে যেতে বসেছে ঐতিহ্যবাহী শীতের পিঠা।
প্রতি বাড়িতে সকাল বেলা খেজুরের রসে ভেজানো পিঠা খাওয়ার ধুম পরতো। নিজের বাড়ির সদস্য ছাড়াও জামাই-ঝি, আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিবেশী সবাই মিলে এক আসরে বসে চলতো পিঠা খাওয়ার মহোৎসব। সরেজমিনে নাটোরের বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে দেখা যায় বাড়ি বাড়ি চলছে শীতকালীন পিঠার মহোৎসব। জেলার রামাগাড়ী গ্রামে প্রবীন এক মহিলাকে তাদের বাড়িতে বিভিন্ন রকম পিঠা তৈরি করতে দেখা যায়। তিনি জানান, বাড়িতে আত্মীয়-স্বজনের আগমন উপলক্ষে প্রতিবছর এই পিঠার উৎসব হয়, এটা আমাদেও গ্রামের ঐতিহ্য। অতীতে সারা দেশে প্রতি বাড়ি বাড়ি শীতকালীন পিঠা উৎসবের আয়োজন করা হতো। কালের বিবর্তনে এ ঐতিহ্য অনেকটাই হারিয়ে যেতে বসেছে।

আগের দিনে বাড়িতে বাড়িতে জামাই-ঝি এনে হরেক রকমের পিঠা উৎসব চলতো। এখন রাস্তার মোড়ে মোড়ে জীবিকার তাগিদে পিঠা বিক্রি করতে দেখা যায়। বর্তমানে একান্নবর্তী পরিবার না থাকায় ঘরে ঘরে সেই ঐতিহ্যবাহী পিঠা উৎসব অনেকটাই কমে এসেছে। ঘরে ঘরে সেই হারানো পিঠা উৎসব আবার ফিরে আসুক। নতুন প্রজন্ম সেই পিঠাপুলির সঙ্গে পরিচিতি লাভ করুক।

Top