আজ : শুক্রবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৭ ইং | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

বিচ্ছেদ ভয়ংকর ক্ষতি করে শরীরের

সময় : ২:৩৯ পূর্বাহ্ণ , তারিখ : ২২ মার্চ, ২০১৭


নিউজ ডেস্ক : “Love is the drug I’m thinking of/Oh’can’t you see/Love is the drug for me,” গানটির কথা অক্ষরে অক্ষরে সত্যি। ভালোবাসা বা প্রেম অনেকটা নেশার মতোই। দীর্ঘদিন নেশা করলে মানুষ যেমন তাতে আসক্ত হয়ে ওঠে, ভালোবাসাও তাই। কাউকে ভালোবাসলে, ধীরে ধীরে সেই মানুষটির সঙ্গে নিজেকে একাত্ব করে নিই আমরা।

তাই কোনও কারণে বিচ্ছেদ হলে, সেই যন্ত্রণা সহ্য করতে পারি না। বুকে তীব্র যন্ত্রণা হতে শুরু করে। নিজেকে সেই মানুষটির কাছে অবহেলিত মনে হয়। খাওয়া-দাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। রাতে ঘুম আসে না। কোনও কাজে মন বসে না। মনে হয় এটাই বোধহয় শেষ। অনেকে মৃত্যু পর্যন্ত বেছে নেন সেই যন্ত্রণার হাত থেকে মুক্তি পেতে।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, কোনও মানুষের নেশা ছাড়ানো হলে, তার যে শারীরিক লক্ষণগুলো দেখা যায়, সম্পর্ক ভেঙে গেলেও অনেকটা একইরকম লক্ষণ দেখতে পাওয়া যায়। অনেক সময় শরীর ও মন সেই পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারে না। দেখা দেয় একাধিক শারীরিক সমস্যা। একেক সময় সমস্যাগুলো এত ভয়ানক হয়ে ওঠে, যে মৃত্যুও ঘটতে পারে।

১. স্ট্রেস হরমোন নিঃসরণে বৃদ্ধি

বিশেষজ্ঞদের মতে, বিচ্ছেদের কারণে আমাদের শরীরে স্ট্রেস হরমোনগুলোর নিঃসরণ কয়েক গুণ বেড়ে যায়। যার ফলে শরীরের নানারকম ক্ষতি হয়। হার্ট অ্যাটাক, হজমে সমস্যা, অনিদ্রা, ওজন বৃদ্ধি, মানসিক অবসাদের মতো কিছু সমস্যা দেখা দিতে থাকে। নেশা করার প্রবণতা তৈরি হয়। যে কারণে বিচ্ছেদের পর বহু মানুষ নেশায় আসক্ত হয়ে ওঠে। ড্রাগ, অ্যালকোহল, তামাকজাতীয় নেশা করতে শুরু করে। মাঝেমধ্যে সেই নেশা প্রাণঘাতীও হয়ে উঠতে পারে।

২. হাঁটতে সমস্যা

টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা বলছে, প্রেমে বিচ্ছেদ হলে মানুষের চলনশক্তি লোপ পেতে পারে। সামান্য দূরত্ব কিংবা সিঁড়ি দিয়ে উঠতে কষ্ট বোধ হতে পারে। ব্যাপারটিকে হঠাৎ কোনও শারীরিক দুর্ঘটনায় চলনশক্তি চলে যাওয়ার সঙ্গে তুলনা করেছেন গবেষকরা। বিচ্ছেদ যদি আমচকা আঘাত দেয়, চলনশক্তি একেবারে নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

৩. চোখ ফুলে যাওয়া

কান্না অনেক প্রকার। পিঁয়াজ কাটার সময় আমাদের চোখ থেকে জল পড়ে। উত্তেজক পদার্থ বা ইরিট্যান্টসের কারণে সেই কান্না। ডাক্তারি ভাষায় বলা হয়, রিফ্লেক্স টিয়ার্স। আর্দ্রতা বাড়াতে চোখে যে জল আসে সেটিও এক ধরনের কান্না। বলা হয়, ব্যাসাল টিয়ার্স। আর যে কান্না মন খারাপের কারণে বেরিয়ে আসে, তা হল সাইকিক টিয়ার্স।

চোখের পাতার এক কোণে অবস্থিত গ্রন্থি থেকে সেই কান্নার উৎপত্তি। ব্যাসাল আর রিফ্লেক্স কান্নায় নোনতাভাব কম, জলের পরিমাণ বেশি। সাইকিক কান্নায় জলের পরিমাণ অতিরিক্ত বেশি। চোখ থেকে ঝরঝর করে বেরিয়ে আসে অশ্রু। অনেকসময় নাক দিয়েও বেরিয়ে আসতে পারে। চোখের নোনতা টিস্যুগুলোকে ছাপিয়ে বেরিয়ে আসার কারণে চোখ ফুলে যায়।
৪. ওজন বৃদ্ধি, দুর্বল হজমশক্তি, ক্ষিদের অভাব

হার্ভার্ড মেডিক্যাল স্কুলের গবেষণায় দেখা যায়, হঠাৎ ব্রেকআপ হলে মস্তিষ্কের একটি বিশেষ ধরনের হরমোনের নিঃসরণ কমে যায়, যার ফলে এক লহমায় শরীরে ক্ষিদে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। প্রেমে বিচ্ছেদ হলে মস্তিষ্ক একসঙ্গে অনেকগুলো কার্যকলাপ করতে আরম্ভ করে। অ্যাড্রিনাল গ্রন্থিকে আরও বেশি অ্যাড্রিনালিন হরমোন নিঃসরণের নির্দেশ দেয়। শরীরের কোষগুলো ইনসুলিনে সাড়া দেওয়া বন্ধ করে দেয় ধীরে ধীরে। যে কারণে ইনসুলিনের নিঃসরণ বেড়ে যায়। সুগার ক্ষতিকারক ফ্যাটে পরিণত হতে শুরু করে এবং ওজন বাড়ে ধীরে ধীরে। সুগার ও অ্যালকোহল খাওয়ার প্রবণতা বাড়ে। হজমশক্তি নষ্ট হতে শুরু করে। শুরু হয় পেট ব্যথা, কোষ্ঠকাঠিন্য ও ডায়ারিয়ার মতো সমস্যাও।

৫. বুকে ব্যথা

প্রিয়জনের থেকে বিচ্ছেদের কারণে বুকে ব্যথা শুরু হতে পারে। স্ট্রেস হরমোন কর্টিসোল ও অ্যাড্রিনালিনের অতিরিক্ত নিঃসরণই এর মূল কারণ। হৃদস্পন্দন বাড়ে ও হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা তৈরি হয়। যাদের হৃদয় দুর্বল, এই যন্ত্রণা সহ্য করতে পারেন না। হার্ট অ্যাটাক তাদেরই বেশি হয়। গবেষণা বলে, বিচ্ছেদের কারণে খুব অল্পদিনের মাথায় মহিলারা হার্ট অ্যাটাকের শিকার হন। তবে পুরুষরা দীর্ঘদিন কষ্ট পেতে পেতে হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হন।

৬. অনুজ্জ্বল ত্বক

ব্রেকআপের কারণে কর্টিসোল ও অ্যাড্রিনালিন হরমোন নিঃসরিত হলে, তা ত্বকের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। ত্বকের উজ্জ্বলতা লোপ পেতে শুরু করে। গবেষণা বলছে, এর কারণে হতে পারে নানাধরনের স্কিন ডিজ়িজ়, যেমন এগজ়িমা, সোরিয়াসিস, অ্যালোপেশিয়া।

Top