আজ : বৃহস্পতিবার, ২৭শে এপ্রিল, ২০১৭ ইং | ১৪ই বৈশাখ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

মৃত্যু যন্ত্রণায় ছটফট করছে গঙ্গানির্ভর সব নদ-নদী

সময় : ৮:৫৫ অপরাহ্ণ , তারিখ : ১২ এপ্রিল, ২০১৭


নদীই জীবন। নদী বাঁচলে মানুষ বাঁচবে। উন্নয়ন ঘটবে কৃষি, শিল্প, ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থনীতি, জীববৈচিত্র, বনজ ও মৎস্যসম্পদ এবং পরিবেশের। কিন্তু গঙ্গানির্ভর দক্ষিণ-পশ্চিমের সব নদ-নদী এখন মৃত্যুযন্ত্রণায় ছটফট করছে। নদ-নদী বাঁচার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। মানুষের অন্যতম মৌলিক অধিকার পানি প্রাপ্তি নিয়ে দেখা দিচ্ছে অনিশ্চয়তা। ভারতীয় আগ্রাসনে নদী দেহের অন্যতম হৃদপিন্ড পদ্মা এখন স্পন্দনহীন প্রায়। পদ্মার বুকে চলছে হাহাকার। পদ্মার কান্না থামছে না। একইসাথে কাঁদছে পদ্মার সব ক’টি শাখা নদ-নদী। বাঁচানোরও কোনো উদ্যোগ নেই। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গড়াই, কুমার, কপোতাক্ষ, বুড়িভদ্রা, ভৈরব, চিত্রা, নবগঙ্গা, মুক্তেশ্বরী ও মধুমতি গত ৪০ বছরের ব্যবধানে খালে পরিণত হয়েছে। যার কারণে দিনে দিনে সমুদ্রে পানির উচ্চতা বাড়ছে। জলবায়ু ও ভ‚-প্রকৃতির পরিবর্তনে সৃষ্ট প্রাকৃতিক দুর্যোগের মাত্রা বাড়ছে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১০ জেলার ২২ হাজার ৭৩৭ বর্গকিলোমিটার এলাকায় বাড়ছে খরা ও মরুকরণ প্রবণতা। পরিবেশ হচ্ছে বিপর্যস্ত। নদী ও পরিবেশ বিশেষজ্ঞ এবং সংশ্লিষ্ট মহল থেকে বহুমুখী আশঙ্কার কথা উল্লেখ করে বলা হয়েছে, নদ-নদী শুকিয়ে যাওয়ায় জীবন-জীবিকার উপর প্রচন্ড আঘাত পড়ছে। সূত্রমতে, শুধু নদ-নদী নয়, এ অঞ্চলের মোট ১১০টি শাখা প্রশাখা নদ-নদী, এক হাজার ৭৮১টি খাল-বিল ও ৯৫ হাজার ৮৭৯টি পুকুর দীঘির বেশির ভাগই প্রায় পানিশূন্য হয়ে পড়ছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড, বিএডিসি, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর ও হাইড্রোলজি বিভাগ সূত্র বলেছে, প্রতিটি শুষ্ক মৌসুমে ভয়াবহ পানি সঙ্কট দেখা দেয় গোটা দক্ষিণ-পশ্চিমে। ভ‚-পৃষ্টে পানি পাওয়া হয় কঠিন।
এবারো তার ব্যত্যয় ঘটেনি। সূত্রমতে, ফারাক্কা আর মিনি ফারাক্কার ধাক্কায় সব নদী শুকিয়ে গেছে। গঙ্গানির্ভর নদ-নদীর অবস্থা এতটাই সঙ্গীন যে একসময়ের স্রোতসিনি ছিল অথচ এখন খালে পরিণত। মাথাভাঙ্গা, আপার ভৈরব, ইছামতি, কোদলা ও বেতাইসহ প্রায় সব ক’টি অভিন্ন নদ-নদীর উজানে বাঁধ, গ্রোয়েন ও পাথর ফেলে পানি নিয়ন্ত্রণ করে আসছে বহুদিন ধরে। এতে ভাটি অঞ্চলের দেশ বাংলাদেশের জলবায়ুর পরিবর্তন ঘটছে দ্রæত। বদলে যাচ্ছে আবহাওয়া। ষঢ়ঋতুর পরিবর্তন ঘটছে। গড়পড়তা তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আবহাওয়ার অস্বাভাবিক আচরণে পরিবেশবিদগণ উদ্বিগ্ন। সূত্র জানায়, নদ-নদীর প্রবাহ বিঘœতা ও সমুদ্রের পানির উচ্চতা জলবায়ুর পরিবর্তন ঘটায়। অভিন্ন নদীর পানি প্রতিবন্ধকতা ছাড়াও বনভ‚মি উজাড় ও বৃক্ষ নিধন আবহাওয়া-জলবায়ু পরিবর্তন সমস্যাকে আরো বাড়িয়ে তুলেছে।
ক্রমাগত পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে পৃথিবীর অনন্য সুন্দর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবন মারাত্মক হুমকির মুখে। দেশের বৃহত্তম গঙ্গা-কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্পের (জিকে প্রজেক্ট) অস্তিত্ব¡ বিপন্ন। জিকের ক্যানেলগুলো খাঁ খাঁ করছে। মংলা সমুদ্রবন্দর ও নওয়াপাড়া নদী বন্দর চরম সঙ্কটে। নাব্যর অভাবে নৌ-যোগাযোগ সঙ্কুুচিত হয়েছে। বিশাল অঞ্চলের শাখা-প্রশাখার উৎসমুখ গড়াইয়ে পানি গড়িয়ে আসছে না পদ্মা থেকে। কোথাও স্রোতহীন, কোথাও পানিশূন্য অবস্থা। নদ-নদীর পানি বঙ্গোপসাগরে পড়ার স্বাভাবিক ধারা হয়েছে অস্বাভাবিক।
সরেজমিন যশোর, ঝিনাইদহ ও খুলনার ভৈরব নদ, ঝিনাইদহের নবগঙ্গা, শৈলকুপার কুমার, কালীগঞ্জের চিত্রা, চুয়াডাঙ্গার মাথাভাঙ্গা ও কুষ্টিয়ার গড়াই পানির অবস্থা সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মূলত পদ্মার শাখা-প্রশাখা নদ-নদীতে পানি একেবারেই কমে গেছে। এ অঞ্চলের ইছামতি, সোনাই, বেতনা ও কোঁদলাসহ অভিন্ন নদ-নদীর অবস্থাও করুণ। মূল কথা ফারাক্কা আর মিনি ফারাক্কার কারণে নদ-নদী শুকিয়ে গেছে। তাছাড়া বহুকাল যাবত দক্ষিণ-পশ্চিমের বেশির ভাগ নদ-নদী সংস্কার করা হয়নি। এতে নদ-নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে গেছে। বর্ষা মৌসুমের পানি ধারণ ক্ষমতাও হারিয়ে ফেলেছে নদীগুলো। নদ-নদীর কোনো কোনো অংশে যতটুকু প্রবাহ আছে, তাও বন্ধ হয়ে যাচ্ছে অপরিকল্পিত ব্রিজ নির্মাণ, বাঁধ ও পাটাতন দিয়ে মাছ চাষ, অবৈধ দখল, সøুইস গেইট ও পোল্ডার এবং ভেড়িবাঁধ নির্মাণের কারণে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের নদী বাঁচাও আন্দোলন কমিটির নেতৃবৃন্দের কথা, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রায় সব নদ-নদী এখন প্রায় মৃত। যে কারণে পরিবেশের উপর নেমে এসেছে মারাত্মক বিপর্যয়। সময় থাকতে জীবন-মরণের সমস্যা সমাধানের উপায় খুঁজে বের করার জোর তাগিদ দিয়েছেন সচেতন পর্যবেক্ষক মহল।

Top