আজ : সোমবার, ২৬শে জুন, ২০১৭ ইং | ১২ই আষাঢ়, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

হাজীদের আবাসন নিয়ে রশি টানাটানি

সময় : ৭:১৯ অপরাহ্ণ , তারিখ : ১২ এপ্রিল, ২০১৭


কামরা যতো ছোট বা বড়ই হোক, তাতে চার জনের বেশি হাজীকে থাকতে দেয়া যাবে না মর্মে হজ ও উমরাহ মন্ত্রণালয়ের জারি করা একটি সার্কুলার প্রত্যাখ্যান করেছে সউদি ভবনমালিক, বিনিয়োগকারী ও হজ হাউজিং কমিটি।

হজ আবাসনে বিনিয়োগকারী মোহাম্মদ বিন আবদুল রহমান সালমান আরবী দৈনিক ”আল মদিনা” পত্রিকাকে বলেন, প্রত্যেক হাজীর চার বর্গমিটার জায়গা দেয়ার যে সিদ্ধান্ত দিয়েছিল মন্ত্রীসভা, এই সার্কুলার তার বিপরীত। কাজেই এটা মানা যায় না।

তিনি বলেন, সার্কুলারে বর্ণিত অনেক বিষয় ভবনমালিকরা ইতিমধ্যেই বাস্তবায়ন করেছেন। যেমন, নিরাপত্তাব্যবস্থা, স্বাস্থ্যসেবা, পরিচ্ছন্নতা, হাজীদের সেবায় প্রয়োজনীয়সংখ্যক কর্মী নিয়োগ এবং ২৪ ঘণ্টাই নিরাপত্তা টহলের ব্যবস্থা।

মুনাওয়ার জামীল আল-ফাহমি বলেন, হজ আবাসন ইস্যুটি মন্ত্রীসভাই নিস্পত্তি করে দিয়েছে। এখানে আর কোনো মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপের প্রয়োজন নেই।

ওয়ালিদ মোহাম্মদ আজিজুররহমান নামে অপর এক বিনিয়োগকারী বলেন, মন্ত্রণালয়ের সার্কুলারটি আইনসম্মত হয়নি। আল্লাহর মেহমানদের আবাসনব্যবস্থা কেমন হবে, সে ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সুন্দর একটি পদ্ধতি অনুমোদন করে দিয়েছে। আমরা হজ হাউজিং কমিটি সেমতে কাজ করে যাচ্ছি। অনেক বাড়ি ও হোটেলে এমন কামরাও আছে, যেখানে একসঙ্গে ছয়জন হাজীও থাকতে পারেন।

হজ হাউজিং কমিটির চেয়ারম্যান মাজেদ সানারি বলেন, হাজীদের আবাসন প্রশ্নে আমাদের সংগঠন মন্ত্রীসভার সিদ্ধান্তই মেনে চলবে। মন্ত্রীসভা তাদের সিদ্ধান্ত বদলায়নি। কাজেই হজ ও উমরাহ মন্ত্রণালয়ের সার্কুলার কী বললো, তাতে আমাদের করার কিছু নেই।

ভবনমালিকরা বলছেন, বিভিন্ন হজ মিশন ও বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে ইতিমধ্যে অনেক বাড়িঅলার চুক্তিও হয়ে গেছে। অনেক বাড়িতে এমন অনেক কামরা রয়েছে, যাতে আট জন হাজীও থাকতে পারবেন। এই সার্কুলারের কারণে আমরা ধরা খেয়ে গেলাম। সার্কুলারটি অনেক দেরিতে জারি করা হলো। সূত্র : সউদি গেজেট

Top