২৪শে মার্চ, ২০১৯ ইং, রবিবার

জুলাইয়ের মধ্যে তারেককে ফিরিয়ে আনা হবে

আপডেট: জানুয়ারি ১২, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

জুলাইয়ের মধ্যে লন্ডনে পলাতক দণ্ডিত আসামী তারেক রহমানকে ফিরিয়ে আনার জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কাজ শুরু করেছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকৌশলের মধ্যে রয়েছে তারা ফ্রেব্রুয়ারীর মধ্যে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে ডিপ্লোমেটিক নেগোসিয়েশন শেষ করতে চায়। দুই দেশের একটি চুক্তি স্বাক্ষর চুড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।

আওয়ামী লীগ সরকার নতুন করে দায়িত্ব গ্রহণের পর অগ্রাধিকার ভিত্তিতে অনেকগুলো কাজ দেখছে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে তালিকা তৈরীরও নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে তারেক জিয়াসহ দণ্ডিত পলাতকদের ফিরিয়ে নিয়ে আসা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে অন্যতম ইস্যু বলে বিবেচনা করা হচ্ছে। নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জনাব আব্দুল মোমেন বলেছেন, যে সমস্ত দণ্ডিতরা দণ্ড এড়াতে বিদেশে পালিয়ে আছে।

তাদেরকে দেশে ফিরিয়ে নিয়ে আসাটা আমাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটা বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি বলেন যে, শুধু তারেক জিয়া নয়। ১৫ আগষ্টের যারা খুনি, তারা বিভিন্ন দেশে পালিয়ে আছেন। তাদের নিয়ে আসার জন্য আমরা বিভিন্ন সময়ে তৎপরতা চালিয়েছিলাম। কিন্তু আমরা সফল হতে পারিনি। এবার নিশ্চয়ই আমরা সফল হবো।’

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, একটি মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং একটি মামলায় ৭ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া। তিনি যুক্তরাজ্যে রাজনৈতিক আশ্রয় লাভ করেছেন। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে গত বছরের জুন মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে যুক্তরাজ্য সরকারের কাছে তারেককে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য আবেদন করা হয়।

এই আবেদনের প্রেক্ষিতে তারেক জিয়া বলেছিল, তাকে দেশে নিয়ে গিয়ে মৃত্যুদণ্ডে দন্ডিত করা হবে। এজন্য তিনি দেশে যেতে আগ্রহী নন। তার এই বক্তব্যের সমর্থনে তিনি ২১শে আগষ্ট গ্রেনেড হামলার মামলার যে কার্যক্রম, সে কার্যক্রমের তথ্যাদি ব্রিটিশ হোম ডিপার্টমেন্টের কাছে হস্তান্তর করেছিলেন। কিন্তু এই মামলায় তারেকের মৃত্যুদণ্ড হয়নি, যাবজ্জীবন হয়েছে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন