আজ : রবিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং | ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

বাংলার সুপার হিরো সেনা কর্মকর্তা !


মেলায় আগুন লেগেছে। নিরাপদে যেতে ছুটছে যে যার মত। চিৎকার করছে নারী, শিশুরা। কেউ পানি পানি করে করছে চিৎকার। এমন অবস্থায় আর্বিভাব হলেন একজন। আগুনের কাছে গিয়ে বালু ছিটিয়ে নিয়ন্ত্রণ করলেন আগুন। বাঁচালেন কোটি টাকার সম্পদ। প্রাণ ফিরে পেলেন মেলার দোকানিরা।

শনিবার সন্ধ্যায় রাঙামাটি শহরে শহরের কে কে রায় সড়কের মুখে জিমনিশিয়াম মাঠে তাঁত ও বস্ত্র মেলায় এমন ঘটনা ঘটেছে। সিনেমার কাহিনির মতো ঝুঁকি নিয়ে বড় ধরনের আগুনের হাত থেকে জীবন ও সম্পদ বাঁচালেন রাঙামাটি সেনা জোনের কামন্ডার লে. কর্নেল রেদোয়ান।

তাঁত বস্ত্র মেলার আয়োজক কমিটির সভাপতি বিপ্লব চাকমা বলেন, ‘জোন কমান্ডার না থাকলে আজই এ মেলার স্থলগুলো ছাইয়ে পরিণত হত। তার সাহসিকতায় বড় দুর্ঘটনা থেকে আমরা রক্ষা পেয়েছি।’

সেনা কর্মকর্তা রেদোয়ান বলেন, ‘সন্ধ্যা সাড়ে ছয় টার দিকে সাদা পোশাকে মেলায় কেনাকাটা করতে গিয়েছিলাম। সাথে আমার বডিগার্ড ছিল। আমি সোয়েটারের দোকানে ছিলাম। এমন সময় আগুন আগুন করে চিৎকার শুরু হয়।’

‘কেউ পানি পানি বলে চিৎকার করছে। কেউ ফায়ার সার্ভিসের নম্বর খুঁজছে। কেউ ছুটাছুটি করছে। তখন আগুন জ্বলে উঠেছে। আমার বডি গার্ড মানা করছিল স্যার আগুনের কাছে যাবেন না।’

‘আমি কাছে গিয়ে দেখি মেলায় জেনারেটর নিয়ন্ত্রণ কক্ষে বৈদ্যতিক শর্ট সার্কিট হয়ে আগুন লেগেছে। আগুন উপরে উঠে মেলায় টানানো ত্রিপলে আগুন ধরেছে। অনেকে পানি ছিটাতে বলছে। আমি এদের মানা করলাম। আমি জানতাম এসমস্ত হলে পানি দিলে আগুন আরও বাড়ে।’

‘তাই প্রথমে দেখলাম পাশে বালু আছে কিনা? না থাকায় দূর থেকে বালু সংগ্রহ করে এনে ছিটিয়ে দিই। আগুন নিয়ন্ত্রণ না আসা পর্যন্ত বালু ছিটাই। পরে আগুন নিভে যায়।’

রেদুয়ান জানান, আগুন নেভানোর বিষয়ে তার কোনো প্রশিক্ষণ ছিল না। কিন্তু তিনি সাহস করে এগিয়ে এসেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী নরেন চাকমা বলেন, ‘কেউ আগুনের সামনে যাওয়ার সাহস করছিল না। যিনি গেছেন উনি যে আর্মি অফিসার তাও কারও জানা ছিল না। আরো দুএক মিনিট দেরি করা হলে বড় দুর্ঘটনা ঘটত। কারণ তখন ত্রিপুলে আগুল লেগে জ্বলে উঠেছিল। এটি পাশের একটির সাথে অন্যটি লাগানো স্থলে লাগলে মহূর্তে ছড়িয়ে যেত।’

বিপ্লব চাকমা জানান, আগুনে জেনরেটর নিয়ন্ত্রণ কক্ষ ছাড়া মেলায় ৭০টি স্টলের কোনটির ক্ষতি হয়নি। কমান্ডারের সাহসিকতায় বড় দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পেয়েছি।’

Top