আজ : মঙ্গলবার, ২২শে মে, ২০১৮ ইং | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দশ বছরে হজযাত্রার ভাড়া বেড়েছে ৪০ হাজার টাকা


অব্যাহতভাবে বাড়ছে হজযাত্রার ভাড়া। দশ বছরে হজযাত্রার ভাড়া বেড়েছে প্রায় ৪০ হাজার টাকা। সর্বশেষ হজের ভাড়া বাড়ানোর প্রস্তাবকে ‘অযৌক্তিক ও অন্যায়’ বলে অখ্যায়িত করেছে হজগত ২০০৮ সালে হজে বিমানের ভাড়া ছিল জনপ্রতি ৯৮ হাজার ৯৭০ টাকা ছিল। আর ২০১৮ সালে এসে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ৩৮ হাজার ১৯১ টাকা। দশ বছরে ভাড়া বেড়েছে ৩৯,২২১ টাকা।

সোমবার দুপুরে মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘হজ প্যাকেজ-২০১৮’তে এই বিমান ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

প্রস্তাবিত বিমানের ভাড়া ১ লাখ ৩৮ হাজার ১৯১ টাকা যা গত বছর ছিল ১ লাখ ২৪ হাজার ৭২১ টাকা। প্রতি যাত্রীর জন্য বিমান ভাড়া বেড়েছে প্রায় ১৪ হাজার টাকার মতো।

এদিকে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ প্যাকেজ-১ এ সর্বোচ্চ মোট খরচ ৩ লাখ ৯৭ হাজার ৯২৯ টাকা। প্যাজেট-২ এ ৩ লাখ ৩১ হাজার ৩৫৯ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এদিকে হজের সময় বিমান ভাড়া বাড়ানো হলেও ঢাকা-জেদ্দা-ঢাকা বিমান ভাড়ার ক্ষেত্রে একজন সাধারণ যাত্রীর জন্য ৩৬ থেকে ৪০ হাজার টাকা নেয়া হয়। আর ওমরাহ যাত্রীর ক্ষেত্রে এর পরিমাণ ৪৯ থেকে ৫২ হাজার টাকা রাখা হয়। অথচ একই দূরত্বে হজযাত্রীদের ক্ষেত্রে সেই ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ৩৮ হাজার ১৯১ টাকা, যা একজন সাধারণ যাত্রীর থেকে লক্ষাধিক টাকা বেশি।

বিগত দশ বছরে জনপ্রতি হজ প্যাকেজের বিমানভাড়া থেকে দেখা যায়- ২০০৮ সালে বিমান ভাড়া ছিল ৯৮ হাজার ৯৭০ টাকা, ২০০৯ সালে বিমান ভাড়া ছিল ৯২ হাজার ২৭০ টাকা, ২০১০ সালে ছিল ৯৬ হাজার ৪২৫ টাকা, ২০১১ সালে ১ লাখ ১০ হাজার ৯৫০ টাকা, ২০১২ সালে ১ লাখ ২৩ হাজার ৬২০ টাকা, ২০১৩ সালে ১ লাখ ২২ হাজার ২৩ টাকা, ২০১৪ সালে ১ লাখ ১৯ হাজার ৩৫৪ টাকা, ২০১৫ সালে ১ লাখ ১৯ হাজার ৪৮৭ টাকা, ২০১৬ সালে ১ লাখ ২২ হাজার ৬৬৫ টাকা এবং ২০১৭ সালে বিমান ভাড়া ছিল ১ লাখ ২৪ হাজার ৭২৩ টাকা।

ভাড়া বাড়ানোর ব্যাপারে প্রতিক্রিয়ায় হাবের সাধারণ সম্পাদক এম শাহাদাত হোসাইন তাসলিম পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘বিমানে যেভাবে ভাড়া বাড়িয়েছে এটা একেবারেই অযৌক্তিক ও অন্যায়। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই।’

এব্যাপারে কোনো কর্মসূচি দিবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মন্ত্রিসভায় হজ প্যাকেজ-২০১৮ অনুমোদন হয়েছে এইমাত্র জানতে পেরেছি। এব্যাপারে আমরা পরবর্তীতে বসে করণীয় ঠিক করব।’

ভাড়া বাড়ানো প্রসঙ্গে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের মহাব্যস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘গত বছরের জুলাই মাসের পর থেকে ৪ দফায় জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে। সৌদি সরকারের ট্যাক্স ও আনুষঙ্গিক খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া হজ ফ্লাইটগুলো যাবে ভর্তি হয়ে ফিরবে খালি, অতিরিক্ত সেবা ও জনবল নিয়োগ দিতে হয়। এসব কারণে বিগত বছরের চেয়ে ভাড়া বাড়ানো হয়েছে।’ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব)।

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ...
Top