আজ : সোমবার, ১৮ই জুন, ২০১৮ ইং | ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

১০ নেপালি যাত্রীকে বাঁচিয়ে না ফেরার দেশে পাইলট প্রিথুলা


নেপালের কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিধ্বস্ত হওয়া ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমানের সহকারী পাইলট প্রিথুলা রশিদ না ফেরার দেশে চলে গেছেন। তবে তিনি নিজের জীবনের বিনিমেয়ে ১০ নেপালি যাত্রীর প্রাণ বাঁচিয়ে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। মৃত্যুর আগ মুহূর্তে তার দায়িত্ববোধ বাংলাদেশকে এতোটাই গর্বিত করে গেছেন যে আজীবন তিনি মানুষের ভালোবাসা নিয়ে অন্তরে বেঁচে থাকবেন।

দুর্ঘটনায় নিজের কথা না ভেবে আগে যাত্রীদের রক্ষা করার চেষ্টা করেছিলেন প্রিথুলা। বিমানে থাকা দশ নেপালি যাত্রীকে মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচিয়ে নিরাপদে সরিয়ে দিতে নিজের সর্বোচ্চ চেষ্টা করছিলেন তিনি। আর চেষ্টা করতে করতেই আক সময় মর্মান্তিক মৃত্যু হয় প্রিথুলার। তবে তার জীবনের শেষ মুহূর্তর চেষ্টা ব্যর্থ হয়নি। ওই দশ নেপালি যাত্রীর সবাই দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে এবং বেঁচে আছে।

এদিকে নেপাল ও ভারতের বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সোশ্যাল সাইটে এই নারী পাইলটকে ‘ডটার অব বাংলাদেশ’ আখ্যা দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হচ্ছে।

সেখানে বিমানের কো পাইলট প্রিথুলা রশীদকে ‘ডটার অফ বাংলাদেশ’ আখ্যায়িত করে বলে হয়েছে তিনি তাঁর জীবন উৎসর্গ করে নেপালিদের জীবন বাঁচিয়েছেন। নিজের জীবনের বিনিময়ে ১০ জন নেপালির জীবন বাঁচিয়েছেন, যারা এখন বেঁচে আছেন। তবে সোশ্যাল সাইট গুলো আর বিস্তারিত জানাতে পারে নি।

ওই ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৫০ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। উড়োজাহাজটিতে থাকা ৬৭ যাত্রীর মধ্যে ৩২ জন বাংলাদেশি, ৩৩ জন নেপালি, একজন মালদ্বীপের এবং একজন চীনের নাগরিক। উড়োজাহাজটিতে ৬৭ যাত্রীর পাশাপাশি ৪ জন ক্রু ছিলেন বলে ইউএস বাংলা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। সেই হতভাগাদেরই একজন প্রিথুলা রশিদ।

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ...
Top