আজ : সোমবার, ১১ই ডিসেম্বর ২০১৭ ইং | ২৭শে অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

স্বামীর বসের সাথে পরকীয়া করে প্রেগন্যান্ট হয়ে গেছি, কি করবো বুঝতে পারছিনা… (ভিডি্ওসহ)


সকল নিউজ আপডেট পেতে পেইজে লাইক দিন

আমি লিজা। খুবই সাধারণ নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে আমি। অল্প বয়সে বিয়ে হয় একজন বয়স্ক লোকের সাথে। আমার হাসবান্ড শারিরিকভাবে দুর্বল। বিয়ের পরেই স্বামীর অফিসের কোয়াটারে উঠি। এদিকে আমাদের পাশের কোয়াটারে থাকে আমার স্বামীর বস। তার ছেলে রনি আমার সমবয়সী। ওর সাথে প্রথমে বন্ধুত্ত হয়। এরপর প্রেমের সম্পর্ক। এক পর্যায়ে শারীরিক সম্পর্ক। এভাবে আমরা পরকীয়াই জড়িয়ে যাই।

সুযোগ পেলেই আমরা মিলিত হই। আমার হাসবান্ডের মাঝে মাঝে নাইট ডিউটি থাকে। তখন রনির সাথে আমি রাত কাটাই আমার হাসবান্ডের বেডরুমে। কিন্তু নিজেদের ভবিষ্যৎ নিয়ে ওর বা আমার কোন চিন্তা করি না। আমরা দুজনেই শুধু পরকীয়া সেক্সটাকে অনেক উপভোগ করি। আমার হাসবেন্ড রনিকে একদমই পছন্দ করে নাহ, যদিও ও আমাদের সম্পর্কের কথা জানে নাহ। একদিন সামান্য একটা ব্যাপার নিয়ে রনির সাথে কথা কাটাকাটি হয় আর আমার স্বামী ওকে অনেক বকা দেয়।

আমি আমার স্বামীর কাছে কেন বকেছে জানতে চাইলে ওহ আমাকেও অনেক বকা দেই। অনেক মন খারাপ লাগে ওইদিন। কিছুক্ষণ পরে রনি ফোন দেয়। ওহ আমাকে বলে যে আজকে রাতে আমরা শারীরিক সম্পর্ক করবো। কিন্তু আমি বলি আজকে আমার হাসবান্ডের নাইট ডিউটি নাই। ওহ বলল যে আজকে তোমার হাসবান্ডের উপর মেজাজ খারাপ হইছে। আজকে দরকার হলে তোমার হাসবান্ডের সামনে শারীরিক সম্পর্ক করবো। আমিও আমার হাসবান্ডের উপর বিরক্ত ছিলাম। তখন আমাদের মাথাই একটা দুষ্টুমির বুদ্ধি আসল।

রাতে আমার হাসবান্ডের খাবারের সাথে ঘুমের ঔষধ দেই। আর ও ঘুমিয়ে পড়ে গভীরভাবে। এরপর রনি আসে। আমরা হাসবান্ডের বেডরুমে যাই। রনি বেডরুমেই আমার ঘুমন্ত হাসবান্ডের সামনেই আমাকে কিস করা শুরু করে, আমার নাইটি জামা খুলে ফেলে। আমি ওকে বললাম এখানে নাহ পাশের রুমে। এরপর আমরা পাশের রুমে গিয়ে শারীরিক সম্পর্ক করি। ওইদিন শারীরিক সম্পর্কের সময় রনি আমার স্বামীকে অনেক খারাপ খারাপ গালি দেই।

একপর্যায়ে ওহ আমাকে কোলে করে হাসবান্ডের বেডরুমে নিয়ে যাই, আমার ঘুমন্ত হাসবান্ডের সামনেই আমাকে ওহ কোলে নিয়ে শারীরিক সম্পর্ক করতে থাকে। ওইদিনের মত তৃপ্ত আমি কখনো হইনি। মনে হচ্ছিল আকাশে উড়তেছি। এতটাই বেপরোয়া ছিলাম আমরা যে আমি প্রেগন্যান্ট হয়ে যাই। এখন আমি বুঝতে পারছি নাহ, বাচ্চাটা কি নষ্ট করবো নাকি আমার স্বামীর বাচ্চা বলে চালাবো।

আমার কি করা উচিৎ এখন ? মেয়েটি আমার চাচী হবে, কিন্তু আমাদের স্বামী-স্ত্রীর মত সম্পর্ক ছিল… ডেস্ক : আমার বয়স ২৩। একটা প্রাইভেট ভার্সিটিতে বিবিএ পড়ি শেষ সেমিস্টারে। এবার মূল কাহিনীতে আসি। আমি যখন ফার্স্ট সেমিস্টারে পড়ি তখন একটা মেয়ের সাথে রিলেশন হয়। তখন আমাদের দুজনারই বয়স ১৯ বছর। ও অন্য একটা প্রাইভেট ভার্সিটিতে বিবিএ পড়ত।

ওর সাথে পরিচয় আমার একটা বন্ধুর মাধ্যমে। ওর ক্লাসমেট ছিল। মেয়েটি মফস্বলের মেয়ে। ঢাকাতে হোস্টেলে থাকে। অনেক সুন্দরী, সবাই হুর পরী বলত। আমার সাথে রিলেশনের ৩ মাস। তখন আমরা শারীরিক সম্পর্ক করি। এছাড়া এর কিছুদিন পরে ওর সাথে আমি ৪ দিন কক্সবাজার ছিলাম। ১ বছর রিলেশনে আমরা অনেক বার শারীরিক সম্পর্ক করেছি। এরপর রিলেশনটা ভেঙে যায় নানান কারণে।

কিন্তু ওর সাথে বিয়ে ঠিক হচ্ছে আমার ছোট চাচার। উনি ক্যানাডাতে থাকে। উনার বয়স ৩৭। ঘটনাক্রমে চাচা মেয়েটিকে দেখে বিয়ে করার জন্য পাগল। চাচা অনেক বড়লোক, আর আমার প্রেমিকাও উনাকে বিয়ে করতে চায়। আমার এখন কী করা উচিৎ? উত্তর: আপনার এখন একটিই করণীয়। সেটা হচ্ছে চাচাকে সব সত্য বলে দেয়া।

আপনি যথেষ্ট বড় হয়েছেন, এ কথা বলতে অসুবিধা হবার কথা নয়। চাচাকে এখনোই সব না বললে একসময় তিনি যখন জানতে পারবেন, তিনি আপনাকেও প্রতারক ভাববেন। চাচাকে সব খুলে বলুন। তিনি যদি সব জেনেও মেয়েটিকে বিয়ে করেন, তাহলে ব্যাপারটি আপনার মেনে নেয়াই উচিত হবে। আপনি পারতপক্ষে চাচা চাচীর সাথে সম্পর্ক এড়িয়ে চলবেন যদি মেয়েটি আপনার চাচী হয়। এটাই সবার জন্য ভালো হবে।

Loading...

আরও পড়ুন...
Top