আজ : রবিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং | ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

৩ রাত জেলেই থাকতে হবে খালেদা জিয়াকে


জিয়া অরফানেজ দুর্নীতি মামলার রায় হবে ৮ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার। এই রায়ে যদি বেগম জিয়া খালাস পান তাহলে তো কোনো কথাই নেই। কিন্তু যদি মামলায় তিনি দন্ডিত হন তাহলে কি হবে? তাঁকে উচ্চতর আদালতে যেয়ে জামিন নিতে হবে। কিন্তু বৃহস্পতিবারে রায়ের কপি নিয়ে উচ্চতর আদালতে যাওয়া অসম্ভব ব্যাপার। বেগম জিয়ার অন্যতম আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়াও বলেছেন, ‘রায় দিতে দিতে তো বিকেল হয়ে যাবে। তারপর আমরা হাইকোর্ট যাব কীভাবে?’ তিনি বলেন, ‘বৃহস্পতিবার রায় দেওয়াটাও আমার কাছে কেমন জানি লাগছে। খারাপ রায় দিলে আমাদের জামিনের জন্য রোববার পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।’

আইন অনুযায়ী এই বিচারিক আদালতে দন্ডিত হলে বেগম জিয়াকে আত্মসমর্পন করে কারাগারে যেতে হবে। অবশ্য সানাউল্লাহ মিয়ার সঙ্গে একমত নন, বিএনপি আরেক আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাহাবুব উদ্দিন খোকন। তিনি বলেন, ‘ন্যায় বিচার হলে এই মামলায় বেগম জিয়ার দন্ডিত হবার কোনো সুযোগ নেই। সরকার নির্দেশিত রায়ই কেবল বেগম জিয়া দন্ডিত হতে পারেন।’ আইনগত ব্যাখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, ‘দন্ডিত হলেও বিচারিক আদালতে তাকে আপিল করা পর্যন্ত জামিন দিতে পারে। সেটা না দিলে আমরা হাইকোর্টের যেকোনো চেম্বার জর্জ এমনকি তাঁর বাসাতে গিয়েও জামিন চাইতে পারি।’ তবে তিনি স্বীকার করেন, ‘সবকিছু নির্ভর করছে সরকারের মনোভাবের উপর। বৃহস্পতিবার রায় হওয়ায় একটু মুশকিল হবে।’

তবে পেনাল কোড বিশষজ্ঞরা বলেছেন, নিম্ন আদালতে দন্ডিত হলে অন্তত তিন রাত (বৃহস্পতি, শুক্র, শনি) বেগম জিয়াকে জেলে কাটাতেই হবে। রোববার হয়তো তাঁর জামিন চেষ্টা হতে পারে। আইনজ্ঞরা বলছেন, বয়স বিবেচনায় তিনি জামিন পাবেন। তাছাড়া অসুস্থতার জন্য বেগম জিয়াকে কোনো হাসপাতালেও ভর্তি করা যেতে পারে।

সুত্রঃ বাংলা ইনসাইডার

Top