আজ : মঙ্গলবার, ১৪ই আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিএনপিতে এরা কারা ?


বেগম খালেদা জিয়ার দুর্নীতির মামলার রায়ের তারিখ যতই এগিয়ে আসছে, ততই বিএনপিতে অবিশ্বাস, সন্দেহ বাড়ছে। বিএনপির নেতারা একে অন্যকে সন্দেহ করছেন। ঘনিষ্ঠদের কাছে জানতে চাইছে, নতুন বিএনপিতে কারা থাকছেন। শনিবার রাতে বেগম জিয়া স্থায়ী কমিটির বৈঠক ডেকেছেন। টেলিফোনে বৈঠকের খবর জানার পর একজন সিনিয়র নেতা বলেছেন, ‘আমি তো আসব, কিন্তু ডেভিলদের সামনে কোনো কথা বলতে চাই না।’ বেগম জিয়ার ব্যক্তিগত একজন কর্মকর্তা অসুস্থ ওই স্থায়ী কমিটির সদস্যকে ফোন করেছিলেন। ওই কর্মকর্তা তাঁকে ‘ম্যাডামের’ পক্ষ থেকে বৈঠকে যোগ দেওয়ার জন্য সিনিয়র নেতাকে আমন্ত্রণ জানান। শুক্রবার সকালে ওই ফোন পেয়ে, সিনিয়র নেতা বলেছেন, ‘আমি আসব কিন্তু ওই ডেভিলদের সঙ্গে বৈঠক করে কি হবে?’

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী শনিবার দলীয় কার্যালয়ে তাঁর একনিষ্ঠ কয়েকজনকে বলেছেন, ‘ডেভিলদের খবর কি? ওদের দিকে নজর রাখো। ম্যাডামের রায়ের পরপরই ওরা দল ভাঙার চেষ্টা করবে। এটাই সরকারের মাস্টার প্লান।’

বিএনপির তরুণ নেতা হাবিবুন্নবী খান সোহেল রায়ের তারিখ ঘোষণার পরপরই আত্মগোপনে গেছেন। যাবার আগে ঘনিষ্ঠ কর্মীদের বলেছেন, ‘ডেভিলদের দিকে নজর রাখতে।’

গত কিছুদিন ধরেই বিএনপিতে ‘ডেভিল’ শব্দটির খুব চল। বেগম জিয়া দণ্ডিত হলে কিছু সিনিয়র নেতা দলে ভাঙন ধরাতে পারে বলে গুঞ্জন আছে। বিএনপি ভেঙে তারা ‘ধানের শীষ’ প্রতীক নিয়ে সরকারের পাতানো নির্বাচনে অংশ নেবে-এ খবর বিএনপিতে পুরনো। বিএনপিতে সারাক্ষণই হিসেব নিকেশ চলছে, কারা কারা এই ষড়যন্ত্রে জড়িত। আন্দোলনের কৌশলের চেয়ে বিএনপির কর্মীরা ঘরে শত্রুদের চিহ্নিত করার কাজেই বেশি ব্যস্ত।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন সিনিয়র নেতা বলেছেন, ‘সরকার ওয়ান ইলেভেন স্টাইলে খেলছে। বেগম জিয়াকে জেলে নিয়ে বিএনপি ভাঙার ষড়যন্ত্র করছে। আর ওয়ান ইলেভেনের মতো এবারও আমাদের কয়েকজন নেতা ওই ষড়যন্ত্রের অংশীদার।’

বিএনপিতে কাদের সন্দেহের চোখে দেখা হচ্ছে বা কারা ডেভিল হিসেবে পরিচিত? বিএনপিতে কান পাতলে সরকারের সঙ্গে যোগসাজশের খবর পাওয়া যায় কয়েকজন নেতার, যাঁদের সঙ্গে সরকারের বিভিন্ন মহলের কথা বার্তা হয়েছে। এই তালিকার নাম আছে স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ এবং দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কিছু সিনিয়র নেতার। তবে, বিএনপির একাধিক নেতা আশঙ্কা করছেন, ‘ডেভিলদের তালিকা আরও দীর্ঘ। বেগম জিয়া কেবল জেলে যাক তখন দেখবেন বিএনপিতে ডেভিলই বেশি।

Top