আজ : শুক্রবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং | ৭ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

পাঁচ পেসার খেলাবে দক্ষিণ আফ্রিকা!


দক্ষিণ আফ্রিকার উইকেটগুলো পেস-বান্ধব হিসেবে বিশ্বে পরিচিত। সবুজ ঘাসের আস্তরে ঢাকা ক্রিজে ঝড় তোলেন পেসাররা। তাদের গতি-বাউন্সে নাকানিচুবানি খান ব্যাটসম্যানরা। আর এক্ষেত্রে সবচেয়ে প্রসিদ্ধ জোহানেসবার্গের নিউ ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়াম। আর এবার পিচের অবস্থা দেখে এর কিউরেটর তো আফ্রিকার বিষাক্ত সাপ ‘ব্ল্যাক মাম্বা’র সাথে এর তুলনা করে বলেছেন ‘গ্রিন মাম্বা’। বল যে সাপের মত এঁকেবেঁকে যাবে ব্যাটসম্যানের কাছে আর ছোবল মারবে তা বোঝাই যাচ্ছে। এতে চোখ চকচক করছে দক্ষিণ আফ্রিকার। তারা পরিকল্পনা করছে ভারতের বিপক্ষে তৃতীয় ও শেষ টেস্টে পাঁচজন পেসার দিয়ে বোলিং আক্রমণ সাজানোর।

তিন টেস্টের সিরিজে প্রথম দুই ম্যাচই জিতেছে প্রোটিয়ারা। শেষ টেস্টটি জিতে দলটির সুযোগ রয়েছে ১৯৯৯-২০০০ সালের পর দেশের মাটিতে ভারতকে হোয়াইটওয়াশ করার। তবে রেকর্ড বিবেচনায় জোহানেসবার্গে ভারতই এগিয়ে রয়েছে। এখন পর্যন্ত এই মাঠে দক্ষিণ আফ্রিকা জেতেনি তাদের বিপক্ষে।

সেই আক্ষেপ ঘোচানোকেই কি পাখির চোখ করেছে প্রোটিয়ারা? চলতি সিরিজে পেসাররা রাজত্ব করছেন। তাই ওয়ান্ডারার্সের পেস বোলিং ক্রিজে দল পাঁচ পেসার খেলানোর কথা বিবেচনা করছে বলে জানিয়েছেন প্রোটিয়া অধিনায়ক ফ্যাফ ডু প্লেসি, ‘দল নির্বাচনের আগে অবশ্যই এই বিষয়ে আমরা কথা বলব। উইকেট দেখে মনে হচ্ছে ওয়ান্ডারার্সের চিরাচরিত উইকেট। তবে আমরা পিচ দেখব এবং সেখানে ঘাসের পরিমাণটাও লক্ষ্য করব।’

পাঁচ পেসার খেলাতে গেলে বাদ দিতে হবে দলের বাঁহাতি স্পিনার কেশব মহারাজকে। এই ইনফর্ম বোলারকে কোন হুজুগে খেলার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা যাবে না বলে জানিয়েছেন ডু প্লেসি, ‘কেশব খুবই প্রতিভাবান। ওকে দলের বাইরে রাখতে হলে একশো ভাগ নিশ্চিত হতে হবে যে আমাদের কোন সমস্যা হবে না।’

কেশবের জায়গায় দলে আসতে পারেন অলরাউন্ডার থিওনিস দে ব্রুইন বা পেস বোলিং অলরাউন্ডার আন্দিলে ফেহলুকওয়ায়ো।

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ...
Top