আজ : বুধবার, ১৮ই জুলাই, ২০১৮ ইং | ৩রা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মা যতদিন কারাগারে, ততদিন আসতেই থাকবো


মলিন পোশাক, হাতে একটি পলিব্যাগ। তাতে ঠোঙ্গায় রয়েছে কিছু ফল। এগুলো নিয়ে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দেখতে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের সামনে এসেছেন নারায়ণগঞ্জের রিজভী হাওলাদার (৪০)। তিনি বিএনপির একজন কর্মী। তাকে দেখেই কারাগার সংলগ্ন ব্যারিকেডের কাছে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা বলে উঠলেন, ‘আবার আসছো?’ মুখে অস্বস্তির ভাব নিয়ে রিজভীর উত্তর, ‘মা যতদিন কারাগারে, ততদিন আসতেই থাকবো।’বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) বিকাল পৌনে ৪টার দিকে পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কারাগারের সামনে আসেন বিএনপিকর্মী রিজভী হাওলাদার। কিন্তু পুলিশ তাকে ভেতরে প্রবেশের অনুমতি না দেওয়ায় ফিরে যান তিনি। এ সময় কথা হয় তার সঙ্গে।

রিজভী জানান, তার বাড়ি পটুয়াখালীর বাউফলে। আপাতত বেকার এই বিএনপিকর্মী স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে থাকেন নারায়ণগঞ্জের দেলপাড়ায়। মেয়ে কবিতা হাওলাদার (১৩) অষ্টম শ্রেণিতে এবং ছেলে সিফাত হাওলাদার (৮) একটি মাদ্রাসায় পড়াশোনা করে। বিএনপির কয়েকজন নেতা তাকে আর্থিক সহায়তা দেন, যা দিয়ে তার প্রতিদিনের সংসার চলে।রিজভী হাওলাদার বলেন, ‘এর আগে এসেও (কারাগারের সামনে) কাইন্দা গেছি। মায়ের (খালেদা জিয়া) লগে দেখা করতে পারি নাই। তারে কারাগারে রাখছে, এজন্য হাজার হাজার নেতাকর্মী কাঁদছে। অনেক নেতা দেখা করতে চাইলেও তাগোরে ঢুকতে দেয় নাই পুলিশ।’

তার অভিযোগ, যুবদল, ছাত্রদলের ওপর পুলিশ নির্যাতন করছে। এমনকি তিনি নিজেও রাতে বাড়িতে থাকতে পারছেন না।তিনি বলেন, ‘এখন নয়াপল্টনে পার্টি অফিসে যাবো। ফলগুলো নিয়া যাইতাছি। পুলিশগোরে খাওয়ায় লাভ নাই। বিএনপি কর্মীগোর মধ্যে এই ফল বিলাইয়া দেবো। তবে মা যতদিন কারাগারে থাকবেন ততদিন আমি আসতেই থাকবো।’কথা শেষ করে কয়েক পা পিছিয়ে সামান্য ঘুরে কয়েকবার পুলিশ এবং পরে কারা ভবনের দিকে নিশ্চুপ তাকিয়ে থাকেন রিজভী হাওলাদার।

এ সময় স্থানীয় কয়েকজন দোকানি তাকে হাঁক দিয়ে ডেকে বলেন, ‘সেদিন তো হাউমাউ করে মায়ের জন্য কাঁদলা, আজকে কাঁদবা না?’ তাদের প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে পলিব্যাগে আনা ফল হাতে হাতে ঝুলিয়ে হাঁটা শুরু করেন রিজভী।জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে রয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তাকে দেখতে প্রতিদিনই দলের নেতাকর্মীরা নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের কাছে ভিড় জমান। কিন্তু কারা কর্তৃপক্ষের পূর্ব অনুমতি ছাড়া সেখানে যাওয়ায় তাদের কাউকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হয় না

Top