আজ : শনিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

লিঙ্গ শক্ত না হওয়ায় কারণ কি?


প্রশ্নঃ: আমি কিছুদিন আগে বিয়ে করেছি। বিয়ের আগে আমি প্রায়ই হস্তমৈথুন করতাম। আগের তুলনায় আমার লিঙ্গ তেমন শক্ততা প্রাপ্ত হত না। কিন্তু দুইদিন আগে আমার লিঙ্গ সহবাসের আগে উত্তেজিত হয়ে আর শক্ত হয়না এবং স্বাভাবিক ভাবেই আছে। আমি অনেক চেষ্টা করেও পেনিস শক্ত করতে পারলাম না। আমার নববধূ আমার ঘরে কিন্তু কি করব বুঝতে পারছি না। এখন আমার আত্মহত্যা ছাড়া আর কিছুই করার নেই।

উত্তর: মাত্র দুদিন লিঙ্গ শক্ত হয়নি বলে কেউ অবার আত্মহত্যার কথা ভাবে নাকি? ওসব বাজে চিন্তা ছাড়ুন, জীবন একটি মূল্যবান বস্তু, তাকে আত্মহত্যা করে খামোখা নষ্ট করবেন কেন? প্রথম প্রথম বিয়ের পর অনেকেরই লিঙ্গ উত্তেজনা সংক্রান্ত এমন সমস্যা হয়ে থাকে, ওটা নিয়ে অধিক চিন্তার কোন কারণ নেই. দুশ্চিন্তা পরিত্যাগ করে স্বাভাবিক জীবন যাপন করুন, দেখবেন সব ঠিক হয়ে যাবে। লিঙ্গ শক্ত বা উত্তেজিত হচ্ছেনা কেন এটা ভাবতে থাকলে তো আপনার মনে যৌন উত্তেজনাই আসবেনা। লিঙ্গ উত্তেজিত করার চেষ্টা পরিত্যাগ করুন। মনে যৌন উত্তেজনা এলে লিঙ্গ নিজে থেকেই শক্ততা প্রাপ্ত হয়ে উঠবে। কাজেই নিজের লিঙ্গের দিকে মন না দিয়ে বৌয়ের শরীরের দিকে মন দিন।

বৌকে “হট” নাইট ড্রেস পড়ে সামনে আসতে বলুন। দুজনে একসাথে বসে উত্তেজক গল্প করুন বা পর্ন ফিল্ম দেখুন বা পর্ন গল্প পড়ুন। বৌয়ের পোশাক ধীরে ধীরে খুলুন, তার যৌনাঙ্গে মুখ দিয়ে আদর করুন (নারীদের যোনি চোষার বিষয়ে কিছু তথ্য জেনে নিন)। যৌনসঙ্গমের সময় “লং লাস্টিং”, বা “এক্সট্রা টাইম” ইত্যাদি সময় বাড়ানোর কনডম ব্যবহার করবেন না। ওইসব কনডমে এক বিশেষ পদার্থ লাগানো থাকে যা লিঙ্গের সংবেদনশীলতা কমিয়ে দেয়। যেকোন ব্র্যান্ডের ডটেড বা রিবড বা আলট্রা-থিন কনডম ব্যবহার করুন। কয়েকদিন লিঙ্গ শক্ত না হওয়ার ফলে সঙ্গম করতে না পারলেও সেটা নিয়ে দুশ্চিন্তা করবেন না। যেদিন লিঙ্গ শক্ত হবে সেদিন নাহয় সঙ্গম করবেন। আর যতদিন সেটা না হচ্ছে ততদিন স্ত্রীকে হাত দিয়ে বা মুখ দিয়ে আদর করুন। আবারও বলছি এরকম ঘটনা শুধু আপনার ক্ষেত্রেই ঘটেছে তা নয়, অনেকেরই মাঝে মাঝে এমন হয়।

রাতে ঘুমের মাঝে বা সকালে ঘুম ভাঙ্গার সময় মাঝে মাঝে কি আপনার লিঙ্গ উত্তেজিত বা শক্ত হয়? যদি তাই হয় তো আপনার শারীরিক কোন সমস্যা নেই। এমন না হলেও অনেক ক্ষেত্রেই উত্তেজনার সমস্যার কারণ মূলত মানসিক। তাই আনন্দে থাকার চেষ্টা করুন। বৌকে ভালাবাসুন। এছাড়াও রোজ শারীরিক এক্সারসাইজ করুন ও ঠিকঠাক খাওয়া-দাওয়া করুন. এক্সারসাইজ করলে শরীরে টেস্টোস্টেরন হরমোনের ক্ষরণ হয় যা কামোত্তেজনা বৃদ্ধি করে। অবসর সময়ে আপনার স্ত্রীকে কিভাবে আদর করবেন সেটা কল্পনা করুন । যৌনজীবন সজীব রাখতে কল্পনার কোন জুড়ি নেই।

নিয়মিত গান শুনে, সৃষ্টিশীল কাজ করে মন উৎফুল্ল রাখার চেষ্টা করুন। প্রত্যহ সকালে উঠে স্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম করলে তা মানসিক চাপ ও দুশ্চিন্তা দূরীকরণে সদর্থক ভূমিকা নেয়। আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর চেষ্টা করুন। বিশ্বাস করুন যে আপনিও সঙ্গমের মাধ্যমে স্ত্রীকে পুরোমাত্রায় আনন্দ দিতে সক্ষম। শেষ করার আগে পুণরায় বলছি যে হতাশা ও দুশ্চিন্তা পরিত্যাগ করে একটু ধৈর্য ধরুন, সবকিছু নিজে থেকেই ঠিক হয়ে যাবে। আর যদি তা না হয় তবে কোন ভাল ইউরোলজিস্ট দেখান। হাতুড়ের কাছে ভুল করেও যাবেন না। আর ভুলেও ওইসব “হার্বাল মেডিসিন” একদম নয়। দয়া করে আত্মহত্যার কথা ভাববেন না। জীবন এত ফেলনা জিনিস নয়। শুভেচ্ছা রইল।

Top